ইসলামিক স্টেট জঙ্গি গোষ্ঠীর বিরুদ্ধে লড়াইয়ে ওয়াশিংটন এখনও তাদের পাশে আছে— এই বার্তা দিতে বুধবার বাগদাদে এসেছিলেন মার্কিন বিদেশসচিব মাইক পম্পেয়ো। সিরিয়া থেকে আমেরিকা সেনা সরিয়ে নেওয়ার কথা ঘোষণা করার পর থেকে গোটা পশ্চিম এশিয়ায় তৈরি হয়েছে উদ্বেগ। সে কারণেই পম্পেয়োর আচমকা সফর বলে মনে করা হচ্ছে।

ইরান এবং অন্য জেহাদি গোষ্ঠীগুলো যে ধরনের ভীতি প্রদর্শন করে চলেছে, পশ্চিম এশিয়ার বাকি দেশ যেন তার মুখোমুখি হয়ে লড়াই চালিয়ে যায়, বোঝাতে চেয়েছেন পম্পেয়ো। যদিও মার্কিন বিদেশসচিবের সফরের দিনেই ইরানের শীর্ষ নেতা আয়াতোল্লা আলি খামেনেই বিদ্রুপ করে বলেছেন, মার্কিন অফিসাররা ‘প্রথম শ্রেণির নির্বোধ’। কারও নাম না করে খামেনেইয়ের বক্তব্য, ‘‘কোনও কোনও মার্কিন অফিসার পাগল হওয়ার ভান করেন। আমি মোটেই ও সব বিশ্বাস করি না। আসলে ওঁরা প্রথম শ্রেণির নির্বোধ।’’

পম্পেয়ো ইরাকের প্রধানমন্ত্রী আদেল আব্দেল মেহদি এবং প্রেসিডেন্ট বারহাম সালেহ-র সঙ্গে দেখা করেন। সাক্ষাতের পরে সাংবাদিকদের সঙ্গে কোনও কথা বলেননি পম্পেয়ো। সালেহ জানান, ‘‘আইএসকে ইরাকে পর্যুদস্ত করা গেলেও আমেরিকার সমর্থন এখনও প্রয়োজন আমাদের।’’ 

শুধু বাগদাদ নয়, আম্মানে গিয়ে তার পর কায়রো, মানামা, আবু ধাবি, দোহা, রিয়াধ, মাসকট এবং কুয়েত সিটিও যাওয়ার কথা রয়েছে পম্পেয়োর। দায়িত্ব নেওয়ার পরে এটাই তাঁর সবচেয়ে লম্বা সফর।