এবার ‘বন্ধু’ ইসলামাবাদের দিকেই আঙুল তুলল বেজিং।

বেজিংযের স্পষ্ট বার্তা, পাকিস্তানে কর্মরত চিনা নাগরিকদের নিরাপত্তার জন্য আরও সদর্থক ভূমিকা নিতে হবে শরিফ প্রশাসনকে। দিন দুয়েক আগেই পাকিস্তানের বালুচিস্তানে কর্মরত দুই চিনা নাগরিককে অপহরণ করে জঙ্গিরা। এর মধ্যে একজন শিক্ষক। এই অপহরণের ঘটনায় চিন-পাকিস্তান অর্থনৈতিক করিডর প্রকল্প ধাক্কা খেতে পারে বলে মত কূটনৈতিক বিশেষজ্ঞদের। 

সম্প্রতি রাষ্ট্রপুঞ্জের রিপোর্টে পাক অধিকৃত কাশ্মীরের গিলগিট-বাল্টিস্তানে জঙ্গি কার্যকলাপ নিয়ে আশঙ্কার কথা বলা হয়।ধারাবাহিক জঙ্গি কার্যকলাপের জন্য চিন-পাকিস্তান অর্থনৈতিক করিডর কতটা সফল হবে, তা নিয়েও সন্দেহ প্রকাশ করা হয়েছিল।জঙ্গি উপদ্রুত গিলগিট-বাল্টিস্তানে কর্মরত চিনা নাগরিকদের কোনও সমস্যা না হলেও, পাকিস্তানের আর এক প্রদেশ বালুচিস্তানে এই অপহরণের ঘটনা নতুন করে আশঙ্কা তৈরি করেছে।বালুচিস্তান থেকে দুই চিনা নাগরিকের অপহরণের ঘটনা সেই শঙ্কা নিঃসন্দেহে আরও বাড়িয়ে দিল। প্রসঙ্গত, পাকিস্তানে জঙ্গি কার্যকলাপ নিয়ে দিল্লি বারবার সরব হলেও, প্রতি ক্ষেত্রেই ইসলামাবাদের পাশে দাঁড়িয়েছে বেজিং। চিনকে পাশে নিয়ে ভারতের উপর চাপ বাড়ানোর চেষ্টা বহু বার করেছে পাকিস্তান। 

আরও পড়ুন: রোমেও একই কাণ্ড, ট্রাম্পকে হাত ধরতে দিলেন না মেলানিয়া, দেখুন...

এই অপহরণ নিয়ে চিনা বিদেশ মন্ত্রকের মুখপাত্র লু ক্যাং বলেন, ‘‘প্রতিটি চিনা নাগরিকের সুরক্ষা বিষয়টি বিশেষ গুরুত্ব দেয় বেজিং। বালুচিস্তানে দুই নাগরিকের অপহরণের ঘটনায় বেজিং অত্যন্ত চিন্তিত। শরিফ প্রশাসনের উচিত বিদেশি নাগরিকদের সুরক্ষার বিষয়টিতে আরও গুরুত্ব দেওয়া।’’ প্রয়োজনে ওই দুই চিনা নাগরিককে খুঁজতে পাক প্রশাসনকে সাহায্য করার কথাও বলেছেন ক্যাং।