কাশ্মীর নিয়ে নরেন্দ্র মোদী সরকারের বিরুদ্ধে ফের তোপ দাগলেন পাকিস্তানের প্রধানমন্ত্রী ইমরান খান। নাম না করে মোদী সরকারকে নাৎসি জমানার হিটলারের সঙ্গে তুলনা করলেন তিনি। সেই সঙ্গে তাঁর অভিযোগ, কাশ্মীরে সাম্প্রতিক ঘটনাবলীর পিছনে রয়েছে নাৎসি ভাবাদর্শে অনুপ্রাণিত রাষ্ট্রীয় স্বয়ংসেবক সংঘ (আরএসএস)।

ইমরানের মতে, সংবিধানের ৩৭০ অনুচ্ছেদ বিলোপ করা তথা কাশ্মীরের বিভাজন ঘটানোর পিছনে রয়েছে রাষ্ট্রীয় স্বয়ংসেবক সংঘের আদর্শ। যা গড়ে উঠেছে নাৎসি আদর্শের উপর ভিত্তি করে। এমনকি, কাশ্মীরে দমননীতির নেপথ্যেও রয়েছে হিটলারি মনোভাব। এক সময় যে উদ্দেশ্যে ইহুদি নিধন করেছিলেন জার্মান একনায়ক অ্যাডল্ফ হিটলার, মোদী সরকারও সে রকম ভাবে কাশ্মীরে গণহত্যা চালাতে পারে বলেও আশঙ্কা পাক প্রধানমন্ত্রীর। কাশ্মীরের জনজাতিকে সমূলে উপড়ে ফেলে গোটা উপত্যকার জনমানচিত্রের বদলের প্রচেষ্টাই করছে নরেন্দ্র মোদী সরকার, এমন আশঙ্কা প্রকাশ করেছেন ইমরান।

রবিবার টুইটারে ইমরান লিখেছেন, ‘ভারত অধিকৃত কাশ্মীরে কার্ফু জারি করা, দমননীতি এবং কাশ্মীরিদের উপর আসন্ন গণহত্যা যে নাৎসি ভাবাদর্শে অনুপ্রাণিত আরএসএসের আদর্শ অনুযায়ী করা, তা প্রমাণিত হচ্ছে।’

আরও পড়ুন: জম্মু-কাশ্মীর প্রসঙ্গে ভারতের পাশে দাঁড়াল রাশিয়া

কাশ্মীরে দমননীতির নেপথ্যেও রয়েছে হিটলারি মনোভাব। মত পাক প্রধানমন্ত্রী ইমরানের। ছবি: পিটিআই।

কাশ্মীরে ৩৭০ অনুচ্ছেদ রদের পরই নরেন্দ্র মোদী সরকারের সমালোচনায় সরব হয়েছিলেন ইমরান। ওই সিদ্ধান্তকে ‘বেআইনি’ ও ‘একতরফা’বলেছিলেন তিনি। এ দিনও তীক্ষ্ণ ভাষায় মোদী সরকারকে বিঁধতে ছাড়েননি ইমরান। তাঁর অভিযোগ, কাশ্মীরের ‘জনজাতিকে সমূলে বিনাশ করে সেখানকার জনমানচিত্রে বদল’ করতে চাইছে মোদী সরকার। এ নিয়ে গোটা বিশ্ব কি নিশ্চুপ থাকবে, সে প্রশ্নও তুলেছেন ইমরান। তিনি লিখেছেন, ‘প্রশ্ন হল, মিউনিখে হিটলার যা করেছেন, তা নিয়ে যেমনগোটা বিশ্ব চুপ করেছিল, এখনও কি তেমন করবে!’

আরও পড়ুন: কাশ্মীর নিয়ে মন্তব্য করতে চায় না রাষ্ট্রপুঞ্জ

আরএসএসের সঙ্গে নাৎসি আদর্শের তুলনা করেছেন পাক প্রধানমন্ত্রী। তিনি লিখেছেন, ‘হিন্দু প্রভুত্বের যে আদর্শ রয়েছে আরএসএস-এর তা একেবারেই নাৎসি আধিপত্যর মতো। এবং তাভারত অধিকৃত কাশ্মীরেই থেমে থাকবে না। বরং ভারতের মুসলিমদের উপরে এই দমননীতি চলবে এবং শেষমেশ তা পাকিস্তানকে লক্ষ্য করে অগ্রসর হবে।’