• সংবাদ সংস্থা
সব খবর প্রতি সকালে আপনার ইনবক্সে

মানুষেই সহজে ছড়ায় কোভিড, অন্য প্রাণী বা দূষিত জিনিস থেকে নয়, জানাল আমেরিকা

representational photo
কোভিড-১৯ ভাইরাস। - প্রতীকী ছবি।

ভয়ঙ্কর কোভিড-১৯ ভাইরাস এক জন মানুষ থেকে অন্য মানুষেই সহজে ছড়াতে পারে। দ্রুত ছড়ায়। কোনও দূষিত জিনিসপত্র বা অন্য প্রাণী থেকে কিন্তু ততটা সহজে, ততটা দ্রুত হারে ছড়াতে পারে না এই ভাইরাস।

এখনও অনেকটাই অজানা, অচেনা এই বিশ্বত্রাস ভাইরাসটি সম্পর্কে এটাই নতুন মূল্যায়ন আমেরিকার ‘সেন্টার্স ফর ডিজিজ কন্ট্রোল অ্যান্ড অ্যান্ড প্রিভেনশন (সিডিসি)’-এর।

‘হাউ কোভিড-১৯ স্প্রেডস’ শীর্ষক তাদের ওয়েবসাইটে এ মাসে এই নতুন তথ্যটি জুড়েছে সিডিসি। সংশোধিত ওয়েবসাইটে বলা হয়েছে, ‘‘ভাইরাসটি (কোভিড-১৯) খুব সহজেই মানুষ থেকে মানুষে ছড়ায়। আর সেটা খুব দ্রুত হারে ছড়াচ্ছেও। মানুষের ক্ষেত্রে সংক্রমণের জন্য ভাইরাসটি টিঁকেও থাকতে পারে অনেকটা সময়।’’

কোভিড-১৯ ভাইরাস সম্পর্কে সম্প্রতি গড়ে ওঠা আমাদের আরও একটা ধারণাকে বদলাতে বলেছে সিডিসি। তাই ওয়েবসাইটে তাদের আগের বয়ানটিও বদলে দিয়েছে।

সিডিসি-র নতুন মূল্যায়ন, কোন সূত্র থেকে ভাইরাসটি মানুষের শরীরে ঢুকেছে, সেটা ততটা বড় কথা নয়। তা যদি কোনও দূষিত জিনিসপত্র থেকে আমাদের শরীরে আসে, তাতে সংক্রমণের বিপদ যতটা, অন্য কোনও প্রাণী থেকে এলেও আমাদের বিপদ ততটাই। কোনও কমা-বাড়া নেই।

নতুন মূল্যায়ন বোঝাতে সিডিসি-র ওয়েবসাইটে একটি হেডলাইন দেওয়া হয়েছে: ‘দ্য ভাইরাস ডাজন্ট স্প্রেড ইজিলি ইন আদার ওয়েজ’ (ভাইরাসটি অন্য কোনও ভাবে সহজে ছড়ায় না)।

আরও পড়ুন- ট্রাম্পের টুইটকেও এ বার ‘যথেষ্ট বিভ্রান্তিকর’ মনে করল টুইটার

আরও পড়ুন- চড়া সুর চিনের, লাদাখে প্রকৃত নিয়ন্ত্রণরেখায় প্রস্তুত ভারতও​

সিডিসি জানিয়েছে, কোনও দূষিত জিনিসপত্র ছুঁলেই আমরা কোভিড-১৯ ভাইরাসে সংক্রমিত হয়ে পড়ব, তা কিন্তু নয়। আবার অন্য কোনও সংক্রমিত প্রাণীর সংষ্পর্শে এলেও যে আমাদের সংক্রমিত হওয়ার আশঙ্কা দুম করে বেড়ে যাবে, সেটাও নয়।

কী ভাবে এই সিদ্ধান্তে পৌঁছল সিডিসি?

সিডিসি-র মুখপাত্র ক্রিস্টেন নর্ডলান্ড বৃহস্পতিবার জানিয়েছেন, সংস্থার অভ্যন্তরীণ পর্যালোচনা ও বিভিন্ন স্তরের পরীক্ষানিরীক্ষার ভিত্তিতেই এই সিদ্ধান্ত। তারই প্রেক্ষিতে সংশোধিত হয়েছে ওয়েবসাইট। তাঁর কথায়, ‘‘সংক্রমণের গতিপথ বা ভাষা বদলায়নি। মানুষের মধ্যে ঘনিষ্ঠতা থেকেই কোভিড-১৯ ভাইরাস বেশি ছড়াচ্ছে।’’

সেই ছড়ানোর পথটা কী?

সিডিসি-র ওয়েবসাইটে জানানো হয়েছে, কথা বলা বা হাঁচি, কাশির সময় আমাদের নাক, মুখ থেকে যে ড্রপলেট বেরিয়ে আসে, সেটাই মূলত মানুষ থেকে মানুষে এই ভাইরাসকে ছড়িয়ে পড়তে সাহায্য করে। ফলে, কারও ক্ষেত্রে যদি এই ভাইরাসে আক্রান্ত হওয়ার প্রাথমিক উপসর্গটুকুও না থাকে বা তিনি যদি আদৌ আক্রান্ত না হন, তা হলেও তাঁর নাক, মুখ থেকে বেরিয়ে আসা ড্রপলেট থেকে অন্য মানুষে ছড়িয়ে পড়তে পারে এই ভয়ঙ্কর ভাইরাস।

দু’টি মানুষ কতটা ঘনিষ্ঠ হলে এই আশঙ্কা বেড়ে যায়?

মানুষের ভিড় খুবই পছন্দ কোভিড-১৯-এর। বিহারের দানাপুর রেলস্টেশনে পরিযায়ী শ্রমিকরা। ছবি-পিটিআই।

সি়ডিসি-র ওয়েবসাইটে জানানো হয়েছে কম করে ৬ ফুট। ওই দূরত্বেই এক জন থেকে অন্য জনে ড্রপলেটের মাধ্যমে কোভিড-১৯ ভাইরাসের ছড়িয়ে পড়ার আশঙ্কা বেশি। কারণ, ওই দূরত্বেই বেশি ড্রপলেট বেরিয়ে আসে কোনও মানুষের নাক, মুখ থেকে।

কোভিড-১৯ জনঘনত্ব পছন্দ করে?

বিভিন্ন পর্যবেক্ষণ, পরীক্ষানিরীক্ষা থেকে দেখা গিয়েছে, যে সব এলাকায় জনসমাগম বেশি, কোভিড-১৯-এর সেই সব এলাকাই বড় পছন্দের। কোভিড-১৯ তাই বেশি ছড়ায় নার্সিংহোমে। জেলে। ক্রুজ শিপে। মাংস যেখানে প্যাকেটজাত করা হয়, সেই সব এলাকাও খুব পছন্দের কোভিড-১৯-এর।

সবাই যা পড়ছেন

সব খবর প্রতি সকালে আপনার ইনবক্সে
আরও পড়ুন

সবাই যা পড়ছেন

আরও পড়ুন