ইউক্রেন-কাণ্ডের মোকাবিলায় আক্রমণকে সেরা রক্ষণ হিসেবে বেছে নিয়েছেন ডোনাল্ড ট্রাম্প। যাঁর অভিযোগের জেরে তাঁর বিরুদ্ধে ইমপিচমেন্টের তদন্ত প্রক্রিয়া ডেমোক্র্যাটেরা শুরু করেছেন, সেই হুইসলব্লোয়ারের মুখোমুখি হতে চান মার্কিন প্রেসিডেন্ট। 

ইমপিচমেন্টের তদন্ত প্রক্রিয়া নিয়ে রবিবার সন্ধের পর থেকে টুইট করা শুরু করেন ট্রাম্প। হুইসলব্লোয়ার সম্পর্কে তাঁর টুইট, ‘‘প্রত্যেক আমেরিকাবাসীর মতো আমারও অধিকার রয়েছে ওই অভিযোগকারীর মুখোমুখি হওয়ার। বিশেষত, তাঁকে যখন হুইসলব্লোয়ার বলা হচ্ছে। তিনি বিদেশি নেতার সঙ্গে আমার কথোপকথনকে সম্পূর্ণ ভুল এবং প্রতারণাপূর্ণ পথে পরিবেশন করেছেন।’’

ট্রাম্পের বিরুদ্ধে অভিযোগ, ইউক্রেনের প্রেসিডেন্ট ভলোদিমির জেলেনস্কির উপরে তিনি চাপ তৈরি করেছিলেন আমেরিকার প্রাক্তন ভাইস প্রেসিডেন্ট তথা ডেমোক্র্যাট নেতা জো বাইডেন ও তাঁর ছেলের বিরুদ্ধে তদন্ত পুনরায় শুরুর জন্য। 

গত সপ্তাহে ট্রাম্প জানিয়েছিলেন, হুইসলব্লোয়ারের পরিচয় তিনি জানতে চান। ওই মন্তব্যের প্রেক্ষিতে হুইসলব্লোয়ারের আইনজীবী জানিয়েছেন, তাঁর মক্কেল রীতিমতো বিপন্ন বোধ করছেন। ডেমোক্র্যাটেরা জানিয়েছেন, সাক্ষ্য দেওয়ার জন্য ‘খুব শীঘ্র’ই ওই হুইসলব্লোয়ারকে ডাকা হবে। ডেমোক্র্যাট নেতা অ্যাডাম স্কিফের বিরুদ্ধেও খড়গহস্ত হয়ে ট্রাম্পের অভিযোগ, ‘‘উনিই ওই সব ভয়ঙ্কর কথাবার্তা লিখেছেন এবং তা প্রেসিডেন্টের মুখে বসিয়ে দিয়েছেন। আমি চাই, সর্বোচ্চ স্তরে ওঁকে জিজ্ঞাসাবাদ করা হোক।’’