তীব্র জাতিবিদ্বেষের শিকার হল ভারতীয় বংশোদ্ভূত ১৩ বছরের এক মার্কিন কিশোরী। পিছন থেকে এসে ইচ্ছাকৃত ভাবে ওই কিশোরীকে ধাক্কা মারেন এক গাড়ির চালক, মুসলিম সন্দেহে। ভয়ঙ্কর চোট লেগেছে কিশোরীটির মাথায়। সে এখন কোমায়। তার নাম ধৃতি নারায়ণ। ওই ঘটনায় গুরুতর জখম হয়েছেন ধৃতির বাবা রাজেশ নারায়ণ ও ধৃতির ৯ বছরের ভাই প্রখর। তবে ধৃতির চিকিৎসার জন্য অর্থ সাহায্য করতে যে ভাবে মানুষ এগিয়ে এসেছেন, তা একটি দৃষ্টান্ত। সোমবার পর্যন্ত ধৃতির চিকিৎসার তহবিলে আমজনতা দিয়েছেন ৬ লক্ষ ডলার।

গত ২৩ এপ্রিল ওই ঘটনা ঘটেছে ক্যালিফোর্নিয়ার সানিভেলে। প্রত্যক্ষদর্শীরা জানিয়েছেন, সপ্তম শ্রেণির ছাত্রীটি রাস্তা পেরতে গেলে তাঁকে পিছন থেকে এসে ধাক্কা মারেন ওই গাড়ির চালক।

পুলিশ জানাচ্ছে, ধৃতির পরিবারকে মুসলিম ভেবে অনেক দিন ধরেই তাঁদের টার্গেট করেছিল ইসাইয়া জোয়েল পিপলস নামে ওই গাড়ির চালক।

আরও পড়ুন- চিন গোপনে বানাচ্ছে বৃহত্তম এয়ারক্র্যাফ্ট কেরিয়ার, দেখাল উপগ্রহের ছবি

আরও পড়ুন- মা হলেন মেগান, প্রথম সন্তানে উচ্ছ্বসিত রাজকুমার হ্যারি​

তবে ধৃতির চিকিৎসার জন্য এগিয়ে এসেছেন বহু মানুষ। ‘গোফান্ডমি’ নামে একটি ওয়েবপেজ খুলে ধৃতির চিকিৎসার জন্য অর্থ সাহায্যের আর্জি জানানো হয়েছিল। টার্গেট ছিল ৫ লক্ষ ডলার। কিন্তু সোমবার রাতের মধ্যেই সেই তহবিলে জমা পড়েছে ৬ লক্ষ ডলার।

(এই প্রতিবেদনটি প্রকাশের সময় ধৃতি নারায়ণ নামে ওই কিশোরীকে মুসলিম বলে লেখা হয়েছিল। কিন্তু ওই কিশোরীকে আসলে মুসলিম সন্দেহে আক্রমণ করা হয়েছিল। এই অনিচ্ছাকৃত ত্রুটির জন্য আমরা দুঃখিত।)