ফের অপহরণ এবং জোর করে ধর্মান্তরণ করে বিয়ের অভিযোগ উঠল পাকিস্তানে। এ বারের ঘটনা পাকিস্তানের পঞ্জাব প্রদেশের। ঘটনার পরই ওই কিশোরীকে উদ্ধারের দাবিতে শহরের রাস্তা অবরোধ করে অবস্থান বিক্ষোভ দেখাচ্ছে সংখ্যালঘু সম্প্রদায়।

সূত্রের খবর, বৃহস্পতিবার পঞ্জাব প্রদেশে এক হিন্দু কিশোরীকে অপহরণ করে এলাকারই এক প্রভাবশালী ব্যক্তি। সেখান থেকে তাকে করাচিতে নিয়ে যাওয়া হয়। তার পর ধর্মান্তরণ করিয়ে তাকে জোরজবরদস্তি বিয়েও দেওয়া হয়। ধর্মান্তরণ এবং বিয়ের ভিডিয়ো সোশ্যাল মিডিয়ায় আপলোড করেন ওই ব্যক্তি।

এর পরই ক্ষোভে ফেটে পড়ে সংখ্যালঘু সম্প্রদায়। ঘটনার ন্যায় বিচার না পেলে কিশোরীর বাবা নিজের গায়ে আগুন লাগানোরও হুমকি দিয়েছেন।

আরও পড়ুন: ৪২-এ ৪২ দিন, বাংলার নেতৃত্বে দিল্লিতে সরকার হবে: মমতা

দিল্লি দখলের লড়াইলোকসভা নির্বাচন ২০১৯ 

এর আগেও ঠিক একই ধরনের ঘটনা সামনে এসেছিল। পাকিস্তানের সিন্ধু প্রদেশের ঘোটকি জেলার বাসিন্দা দুই বোনকে বাড়ি থেকে অপহরণ করে নিয়ে গিয়ে ধর্মান্তরণ ও বিয়ের অভিযোগ উঠেছিল। সে ক্ষেত্রেও ধর্মান্তরণ করে বিয়ের ভিডিয়ো সোশ্যাল মিডিয়ায় আপলোড করা হয়েছিল। সংখ্যালঘু সম্প্রদায়ের বিক্ষোভের পর ইসলামাবাদ হাইকোর্ট ওই দুই কিশোরীকে দ্রুত উদ্ধারের নির্দেশ দিয়েছিল।

পুলিশ ঘটনার তদন্ত শুরু করেছে। খুব তাড়াতাড়ি কিশোরীকে উদ্ধার করা যাবে বলে জানিয়েছে করাচি পুলিশ।