ভারতে লগ্নি টানতে জার্মানিকে পাশে পাওয়ার চেষ্টা করলেন প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদী। সোমবারই মোদী চারদেশীয় সফরের জন্য দেশ ছেড়েছেন। ওই দিনই তিনি জার্মানি পৌঁছেছেন। প্রধানমন্ত্রীর বার্লিন সফরের মূল লক্ষ্য বাণিজ্য। সেই লক্ষ্যেই পথ চলা শুরু করলেন মোদী।

মঙ্গলবার নয়াদিল্লি-বার্লিনের মধ্যে সাক্ষরিত হয় আটটি চুক্তি। জার্মান চ্যান্সেলর আঙ্গেলা মের্কেলকে পাশে নিয়ে আগামী দিনে পথ চলার বার্তা দিলেন প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদী। বললেন, ‘‘জার্মানির সঙ্গে আরও অনেক পথ চলতে চাই। আমরা একে অপরের জন্য।’’ প্রধানমন্ত্রী দেশের বাজারকে চিনের প্রভাবমুক্ত করতে জার্মানিকে পাখির চোখ করবেন বলে মনে করছে আন্তর্জাতিক মহল। তাঁর কথায়, ‘‘জার্মানি ভারতের অতি গুরুত্বপূর্ণ বাণিজ্যিক অংশীদার। আগামী দিনে এই সম্পর্ক আরও এগিয়ে নিয়ে যাওয়াই আমাদের উদ্দেশ্য।’’

আরও পড়ুন: বার্লিনে মোদী-প্রিয়ঙ্কার ‘হঠাৎ দেখা’

একই সুর শোনা গিয়েছে মের্কেল-এর গলাতেও। তিনি বলেন, ‘‘ভারত ভাল বন্ধু হিসাবে নিজেকে তুলে ধরেছে। বার্লিনের এক গুরুত্বপূর্ণ বাণিজ্যিক অংশীদার নয়াদিল্লি। এই সম্পর্ককে আরও এগিয়ে নিয়ে যেতে বদ্ধপরিকর দুই দেশ।’’ স্মার্ট সিটি, ডিজিটাল ইন্ডিয়া থেকে শুরু করে স্বচ্ছ ভারতের মতো প্রকল্পগুলিতে আরও বেশি পরিমাণ লগ্নি করার জন্য জার্মান বাণিজ্যিক সংস্থাগুলির কাছে আবেদন জানান প্রধানমন্ত্রী। সন্ত্রাস দমন প্রসঙ্গে দুই দেশ যৌথ ভাবে কাজ করার বিষয়েও আলোচনা হয় এ দিন। এ নিয়ে গত তিন বছরে চার বার সাক্ষাৎ হল মোদি-মের্কেলের। এ দিন অবশ্য মোদী-মের্কেলের আলোচনা বাণিজ্যের মধ্যেই আটকে ছিল না। দুই শীর্ষপ্রধানের আলোচনায় উঠে আসে ফুটবল প্রসঙ্গও। ভারতীয় ফুটবলের উন্নয়নে জার্মানির সাহায্য চাইলেন প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদী।

ভারতীয় ফুটবলের ক্ষেত্রে ২০১৭ গুরুত্বপূর্ণ বছর। ফিফা অনুর্ধ্ব ১৭ বিশ্বকাপ ফুটবলের আয়োজক ভারত। মঙ্গলবার জার্মান চ্যান্সেলর আঙ্গেলা মের্কেলের সঙ্গে প্রধানমন্ত্রীর আলোচনায় উঠে এল সেই ফুটবলের প্রসঙ্গই। ভারতীয় ফুটবলকে গতিশীল করতে মোদী ভরসা রাখলেন ক্লিন্সম্যানের দেশের উপরই। জারি হওয়া যৌথ বিবৃতিতেও বিশেষ গুরুত্ব দেওয়া হয় বিষয়টিতে।