চাবাহার বন্দর নিয়ে ভারতের ‘গয়ংগচ্ছ’ মনোভাবে ক্ষুব্ধ ইরান সরকার। আজ নয়াদিল্লিতে নিযুক্ত ইরানের রাষ্ট্রদূত আলি চেগেনি বলেছেন, ভারতের কাছ থেকে এ ব্যাপারে আরও সক্রিয়তা তাঁরা আশা করেন।

ইরান থেকে তেল নেওয়ার প্রশ্নে আমেরিকা নিষেধাজ্ঞা জারি করলেও ইরানের উপকূলে ওমান উপসাগরে চাবাহার বন্দর নিয়ে কোনও বিধিনিষেধ আরোপ করেনি। আজ ইরানের রাষ্ট্রদূত বলেন, ‘‘এই বন্দরকে পুরোপুরি কাজে লাগানোর ক্ষেত্রে আমরা খুবই উৎসাহী। কিন্তু ভারতীয়রা একই ভাবে উৎসাহ দেখাচ্ছে না। তারা যদি আরও সক্রিয় হয়, তাহলে আমরা খুশি হব।’’ এখানেই না থেমে চেগেনি বলেছেন, ‘‘গ্বদর বন্দর তৈরিতে চিন যা খরচ করেছে, তা ভারতের সঙ্গে আদৌ তুলনীয় নয়।’’ মনে করা হচ্ছে, চিনের প্রসঙ্গ তুলে ভারতকে চাবাহার নিয়ে চাপে রাখার চেষ্টা করছে ইরান। রাষ্ট্রদূতের কথায়, ‘‘আমরা পরিকাঠামো তৈরি করে বসে রয়েছি। এ ভাবে কত দিন অপেক্ষা করা যায়!’’

কাশ্মীর নিয়েও ইরান কিছুটা বেসুর বলে জানাচ্ছে কূটনৈতিক সূত্র। ইরানের সরকারি সূত্রের বক্তব্য ‘‘ভারতকে খুবই সতর্ক থাকতে হবে, যাতে কাশ্মীরের মানুষ ন্যায়বিচার পান। যতটা সম্ভব শান্তিপূর্ণ ভাবে সব কিছু হয়, সেটাই কাম্য।’’