• নিজস্ব প্রতিবেদন
সব খবর প্রতি সকালে আপনার ইনবক্সে

ফেরাতে সরকারকে আর্জি বিনয়দের

Japan ship stuck Indian requests government to take necessary steps
এই জাহাজেই আটকে রয়েছেন যাত্রীরা। —ফাইল চিত্র।

জাপান উপকূলে আটকে থাকা ‘ডায়মন্ড প্রিন্সেস’ জাহাজে নতুন করে ৭০ জন করোনাভাইরাসে আক্রান্ত হয়েছেন। ওই জাহাজে থাকা ভারতীয় কর্মী স্বরূপ চম্পাদার রবিবার জানিয়েছেন, এ দিন জাহাজের ক্যাপ্টেন এমনই ঘোষণা করেছেন। আক্রান্তদের মধ্যে রয়েছেন চল্লিশেরও বেশি মার্কিন নাগরিক। এই নিয়ে আক্রান্তের সংখ্যা পৌঁছল ৩৫৬-এ। তাঁদের মধ্যে তিন জন ভারতীয়। তবে নতুন করে আক্রান্তদের মধ্যে কোনও ভারতীয় রয়েছেন কি না, তা জানা যায়নি। স্বরূপ ফোনে বলেন, ‘‘ফের চিন্তা বাড়ছে। আতঙ্ক ছড়াচ্ছে। কখন, কী যে হবে তা নিয়ে সকলেই চিন্তিত।’’ তিনি আরও জানিয়েছেন, জাহাজে থাকা চারশোরও বেশি মার্কিন নাগরিকদের মধ্যে সুস্থদের এ দিন থেকে দেশে ফেরানো শুরু হয়েছে। তবে নয়াদিল্লি তাঁদের ফেরানোর বিষয়ে কী পদক্ষেপ করছে, তা নিয়ে ধোঁয়াশায় রয়েছেন স্বরূপেরা।

তিনি বলেন, ‘‘বুধবার থেকে ধাপে ধাপে আমাদের মেডিক্যাল চেক-আপ শুরু করা হবে। সে দিনের অপেক্ষায় রয়েছি। তাড়াতাড়ি দেশে ফিরতে চাই। সরকারের কাছে এটুকুই আর্জি।’’ ওই জাহাজে থাকা উত্তর দিনাজপুরের বিনয় সরকার এ দিন ফোনে বলেন, ‘‘আমেরিকা সরকার নাগরিকদের দেশে ফেরাতে তৎপর। কিন্তু আমরা এখনও অসহায় হয়ে পড়ে রয়েছি। জানি না কবে ফিরতে পারব।’’ তিনি জানান, এ দিন ওই জাহাজ বন্দরে নোঙর করেছে। বিনয় বলেন, ‘‘হাতে টিকিট পেয়েও ফেরা অনিশ্চিত।’’

টোকিয়োয় ভারতীয় দূতাবাসের তরফে বার্তা দেওয়া হয়েছে, ডাক্তারি পরীক্ষায় ওই জাহাজে থাকা ভারতীয় কর্মীদের দেহে ভাইরাসের চিহ্ন না মিললে তাঁদের দেশে ফেরাতে সব রকম সাহায্য করা হবে। একটি টুইট-বার্তায় আরও জানানো হয়, ভাইরাস আক্রান্ত তিন ভারতীয় নাগরিক চিকিৎসায় ক্রমে সুস্থ হয়ে উঠছেন। ২০ জানুয়ারি জাপানের ইয়োকোহামা থেকে ওই জাহাজটি রওনা দেয়। চিনের বন্দরে নোঙর ফেলেছিল সেটি। সেখান থেকে বেরোনোর পরে খবর মেলে, এক যাত্রীর দেহে করোনাভাইরাস সংক্রমণের চিহ্ন মিলেছে। ৫ ফেব্রুয়ারি জাপান সরকারের নির্দেশে টোকিয়োয় ফেরে ওই জাহাজ। তার পর থেকে জাহাজে আক্রান্তের সংখ্যা বেড়েই চলেছে। 

 

সবাই যা পড়ছেন

সব খবর প্রতি সকালে আপনার ইনবক্সে
আরও পড়ুন

সবাই যা পড়ছেন

আরও পড়ুন