• নিজস্ব প্রতিবেদন
সব খবর প্রতি সকালে আপনার ইনবক্সে

কিম জন উন নয়, জনসমক্ষে এসেছিলেন ‘ডামি’? সোশ্যাল মিডিয়ায় নয়া জল্পনা

Kim Jong Un
কিম জং উনের এমন দুই ছবি পাশাপাশি রেখেই চলছে কাটাছেঁড়া। ছবি: টুইটার থেকে নেওয়া

কিম জং উনের ‘স্বাস্থ্য’ বিতর্ক যেন শেষ হয়েও শেষ হচ্ছে না। মাসখানেক অন্তরালে থাকার পর জনসমক্ষে আসায় বিতর্ক কিছুটা ধামাচাপা পড়েছিল বটে। কিন্তু সপ্তাহ ঘোরার আগেই ফের উত্তর কোরিয়ার প্রেসিডেন্টকে নিয়ে জমে উঠেছে অন্য বিতর্ক। কিম কি ‘ডামি’ ব্যবহার করছেন? সোশ্যাল মিডিয়ায় এমন প্রশ্ন তুলেছেন অনেকেই। শুধু আম নেটাগরিক নয়, তালিকায় রয়েছেন ব্রিটেনের প্রাক্তন সাংসদ পর্যন্ত। মুখের আদল থেকে শুরু করে নাক, কান, দাঁত, চুলের পার্থক্য তুলে ধরে তাঁদের দাবি, গত ১ মে প্রকাশ্য অনুষ্ঠানে যাঁকে দেখা গিয়েছিল, তিনি আসলে তাঁর ‘ডামি’।

১ মে-র ওই অনুষ্ঠানের আগে কিম জং উনকে শেষ দেখা গিয়েছিল এপ্রিলের শুরুর দিকে। এক মাস জনসমক্ষে না দেখা যাওয়ায় সোশ্যাল মিডিয়ায় ব্যাপক জল্পনা, গুঞ্জন, গুজব ছড়াতে শুরু করে। কেউ বলেছিলেন, তিনি গুরুতর অসুস্থ, প্রাণের ঝুঁকি রয়েছে। ‘মৃত্যুশয্যায় কিম’ বলে রটনা ছিল। কারও দাবি ছিল, অস্ত্রোপচার হয়েছে বলে অন্তরালে। প্লাস্টিক সার্জারির তত্ত্বও খাড়া করেছিলেন নেটাগরিকরা। এমনকি, কিম জং উন আর বেঁচে নেই— এমন কথাও ঘুরছিল সোশ্যাল মিডিয়ার দেওয়ালে দেওয়ালে। একই সঙ্গে তৈরি হয়েছিল তীব্র কৌতূহল।

কিন্তু সে সব কার্যত ভুল প্রমাণ করে এবং কৌতূহলের অবসান ঘটিয়ে ১ মে সর্বসমক্ষে আসেন কিম জং উন। ‘নিভৃতবাস’-এ যাওয়ার ২০ দিন পর একটি সার কারখানার উদ্বোধনের ফিতে কাটতে দেখা যায় তাঁকে। তার পর থেকেই সোশ্যাল মিডিয়ায় শুরু হয়েছে এই নতুন বিতর্ক এবং গুঞ্জন। খুঁতখুঁতে নেটাগরিকরা আগেকার ছবির সঙ্গে এখনকার ছবিতে কতটা পার্থক্য, পুরো কাটাছেঁড়া করে সে সব খুঁজে বের করার প্রতিযোগিতায় নেমেছেন।

আরও পড়ুন: করোনায় মৃত্যুতে ইটালিকে ছাপিয়ে ইউরোপের শীর্ষে ব্রিটেন, বিশ্বে আড়াই লক্ষের বেশি প্রাণহানি

আর এখান থেকেই উঠে এসেছে নর্থ কোরিয়ার রাষ্ট্রপ্রধানের ‘ডামি’ বা ‘নকল কিম’-এর তত্ত্ব। সন্দেহপ্রবণদের অনেকেই পাশাপাশি দুই ছবি রেখে দেখিয়ে দিচ্ছেন, দুই ছবিতে কোথায় কোথায় গরমিল। ব্রিটেনের প্রাক্তন সাংসদ লুই মেন‌্শ যেমন বলছেন, ‘‘দাঁত ও কানের গড়ন এক রকম নয়। উপরের ঠোঁটের যে অংশকে ‘কিউপিড বো’ বলা হয়, তার চরিত্র দু’জনের আলাদা।’’ কেউ কেউ ফারাক দেখিয়েছিলেন হেয়ারস্টাইলের।

 

শুধু পার্থক্য দেখানোই নয়, যুক্তিও রয়েছে এই শ্রেণির নেটাগরিকদের। অনেকে তুলে ধরেছেন বিখ্যাত ব্যক্তিদের ‘বডি ডাবল’ ব্যবহারের কথা। হিটলার থেকে শুরু করে সাদ্দাম হুসেনের ‘ডামি’ ব্যবহারের উদাহরণ পর্যন্ত উঠে এসেছে। নিরাপত্তা বা শত্রুর আক্রমণ থেকে সুরক্ষিত রাখতে বিখ্যাত ব্যক্তিত্বরা ডামি ব্যবহার করে থাকেন এবং কিমের ক্ষেত্রেও যে যেটা অমুলক নয়, সেই দাবিও করছেন তাঁরা। আবার কিমের ক্ষেত্রে আগেও ডামি ব্যবহারের নজির রয়েছে, বিভিন্ন সংবাদ মাধ্যমের রিপোর্ট তুলে ধরেও যুক্তি সাজানো হয়েছে।

আরও পড়ুন: মৃত্যু বাড়তে পারে, ঝুঁকি নিয়েই লকডাউন তোলার ইঙ্গিত ট্রাম্পের

এই সব পোস্টেই অবশ্য কমেন্ট বা রিটুইট করে স্মরণ করিয়ে দিয়েছেন, যে দু’টি ছবির মধ্যে পার্থক্য খোঁজার চেষ্টা হয়েছে, সেগুলির মধ্যে সময়ের ব্যবধান কয়েক বছরের। সেই সময়ের পার্থক্যে যেমন চেহারায় সামান্য অদল বদল হতে পারে, তেমনই ছবি তোলার সময় ‘পোজ’ বা ‘ইমোশন’-ভেদে একই ব্যক্তির শারীরিক অঙ্গপ্রত্যঙ্গের উনিশ-বিশের হেরফের হতেই পারে।

সবাই যা পড়ছেন

সব খবর প্রতি সকালে আপনার ইনবক্সে
আরও পড়ুন

সবাই যা পড়ছেন

আরও পড়ুন