রাজনৈতিক টানাপড়েন, বর্ণবিদ্বেষ, যৌন নির্যাতন, অভিবাসী সঙ্কট— ২০১৮ সালে এই সবকিছুর সাক্ষী থেকেছে দুনিয়া। কিন্তু সেই প্রতিকূল অবস্থাতেও ভেঙে পড়েনি সাধারণ মানুষ। ডুবে যায়নি হতাশার অন্ধকারে। বরং তারমধ্যেই আলোর উত্স খুঁজে নিয়েছে তারা। ছোট ছোট ঘটনায় বেঁচে থাকার রসদ খুঁজে বার করে নিয়েছে। সারা বছরের হিসেব-নিকেশ কষে এমনটাই জানাল সার্চ ইঞ্জিন গুগল।

সার্চ ইঞ্জিন ব্যবহার করে মানুষ কী দেখেন, কী খোঁজেন, তার হিসাব থাকে গুগলের কাছে। বুধবার একটি ভিডিয়ো প্রকাশ করে, সামগ্রিকভাবে সেই খতিয়ান তুলে ধরেছে গুগল। তাতে দেখা গিয়েছে,অধিকাংশ মানুষ সারা বছর ভাল ভাল জিনিসই গুগলে খুঁজে গিয়েছে। কেউ জানতে চেয়েছেন কীভাবে ভাল করে চুমু খেতে হয়, তো কেউ আবার ভাল গায়ক হওয়ার উপায় জানতে চেয়েছেন। ভাল নাগরিক কীভাবে হয়ে ওঠা যায়, তা-ও জানতে চেয়েছেন অনেকে। অনেকে আবার অন্যের কাছে অনুপ্রেরণা হয়ে ওঠার পথ খুঁজেছেন।

দু’মিনিটের ওই ভিডিয়োয় সারা বছর ধরে ঘটে যাওয়া বিশেষ মুহূর্তগুলো তুলে ধরা হয়েছে। যাতে রয়েছে, প্রথমবার মায়ের ডাক শুনে শ্রবণশক্তিহীন একটি শিশুর প্রতিক্রিয়া, তাইল্যান্ডে গুহার মধ্যে আটকে পড়া মানুষকে উদ্ধারের ঘটনা, ভোটদানের মাধ্যমে ডোনাল্ড ট্রাম্পের বিদ্বেষমূলক রাজনীতির প্রতিবাদ করা। স্টিফেন হকিং এবং জন ম্যাকেইনের মতো কিংবদন্তীদের চলে যাওয়াও জায়গা পেয়েছে তাতে। যা দেখে অনেকেই আবেগপ্রবণ হয়ে পড়েন।

 

আরও পড়ুন: সেরা ‘মুহূর্তম’-এ দ্বিতীয় বার তেলঙ্গানার মুখ্যমন্ত্রী পদে শপথ নিলেন কেসিআর​

আরও পড়ুন: অসমে তৃণমূলের ভরাডুবি, বাঙালি এলাকাতেও প্রায় সর্বত্র হার​

গুগলের সিইও সুন্দর পিচাই-সহ বহু মানুষই নিজেদের সোশ্যাল মিডিয়া অ্যাকাউন্টে ভিডিয়োটি শেয়ার করেছেন। যার ফলে মুহূর্তের মধ্যে ভাইরাল হয়ে গিয়েছে সেটি। বুধবার ইউটিউবে আপলোড হওয়ার পর থেকে এখনও পর্যন্ত প্রায় ৬ লক্ষ বার দেখা হয়েছে সেটি। তাতে লাইক দিয়েছেন ১৭ হাজারের বেশি মানুষ।