উরি সেনা ছাউনিতে জঙ্গি হামলার জন্য পাকিস্তানকে যে ভাবে সরাসরি দায়ী করছে ভারত, মরিয়া হয়ে তা নস্যাৎ করার চেষ্টায় নামল ইসলামাবাদ। নয়াদিল্লির মন্তব্য ‘ভিত্তিহীন এবং দায়িত্বজ্ঞানহীন’, বলল পাক বিদেশ মন্ত্রক। সোমবার এক বিবৃতি প্রকাশ করে ইসলামাবাদের তরফে দাবি করা হয়েছে, কোনও প্রমাণ ছাড়াই পাকিস্তানকে দায়ী করছে ভারত।

নিয়ন্ত্রণ রেখা পেরিয়ে জঙ্গিরা কী ভাবে উরিতে ঢুকেছিল, তাদের কাছ থেকে কী কী অস্ত্রশস্ত্র উদ্ধার হয়েছে, তাতে কোন দেশের ছাপ রয়েছে, রবিবার বিকেলের মধ্যেই সেনাবাহিনীর তরফে সে সব তথ্য প্রকাশ্যে আনা হয়। তার ভিত্তিতেই ভারত সরকার পাকিস্তানের বিরুদ্ধে অভিযোগের আঙুল তোলে। কিন্তু, পাকিস্তান সে সব অভিযোগ সোমবার নস্যাৎ করেছে। পাক বিদেশ মন্ত্রকের তরফে এক বিবৃতিতে জানানো হয়েছে, ‘‘ভারতের রাজনৈতিক এবং সামরিক নেতৃত্ব যে ভাবে কোনও প্রমাণ ছাড়াই পাকিস্তানের বিরুদ্ধে বিদ্বেষপূর্ণ মন্তব্য করছে, তাতে পাকিস্তান অত্যন্ত উদ্বিগ্ন।’’ পাকিস্তানের প্রত্যক্ষ মদতেই উরির সেনা ছাউনিতে এই আত্মঘাতী হানা হয়েছে বলে যে অভিযোগ নয়াদিল্লি করছে, তা ‘ভিত্তিহীন এবং দায়িত্বজ্ঞানহীন’ বলে পাকিস্তান দাবি করেছে।

ইসলামাবাদের এই বিবৃতির কোনও ছাপ অবশ্য নয়াদিল্লির নর্থ ব্লক বা সাউথ ব্লকে পড়েনি। জঙ্গি হানার পর ভারত সরকার যে অবস্থান নিয়েছিল, প্রতিরক্ষা মন্ত্রক এবং স্বরাষ্ট্র মন্ত্রক সেই অবস্থানেই অনড়। কেন্দ্রীয় স্বরাষ্ট্র প্রতিমন্ত্রী কিরেন রিজিজু সোমবার বলেছেন, ‘‘আমাদের অভিযোগকে পাকিস্তান মানল না নস্যাৎ করল, তাতে সত্যিই কিছু যায় আসে না। পাকিস্তান কী বলল, সে নিয়ে আমাদের ভাবার কোনও প্রয়োজন নেই।’’ রিজিজুর মন্তব্যে স্পষ্ট ইঙ্গিত, ভারত সরকার এ বার নিজের মতো করেই পদক্ষেপ নেওয়ার পথে। পাকিস্তানের সঙ্গে কোনও আলোচনা বা দ্বিপাক্ষিক কর্মসূচির মাধ্যমে সমস্যার সমাধান খোঁজার চেষ্টা আপাতত নয়াদিল্লি করবে না।

আরও পড়ুন: মার্কিন হানাতেই বিপন্ন শান্তিচুক্তি, ক্ষুব্ধ রাশিয়া

ঠিক এই কারণেই পাকিস্তান মরিয়া হয়ে জঙ্গি হামলায় মদত দেওয়ার অভিযোগ নস্যাৎ করতে চাইছে বলে ওয়াকিবহাল মহলের মত। রবিবার জঙ্গি হানার পর আর বিন্দুমাত্র সময় নষ্ট না করে পাল্টা জবাবের বিষয়ে আলোচনা শুরু করেছে ভারত সরকার। একের পর এক উচ্চ পর্যায়ের বৈঠকে আলোচনা হয়েছে, সীমান্তপার থেকে আসা সন্ত্রাসকে রুখতে চূড়ান্ত পদক্ষেপ কী হতে পারে। নিয়ন্ত্রণ রেখা পেরিয়ে পাক অধিকৃত কাশ্মীরে গড়ে ওঠা জঙ্গি ঘাঁটিগুলি গুঁড়িয়ে দেওয়ার প্রস্তাব নিয়েও আলোচনা শুরু হয়েছে। ভারতের তরফ থেকে সে রকম কোনও পদক্ষেপ রুখতেই পাকিস্তান এখন সব অভিযোগ নস্যাৎ করার চেষ্টায়, বলছে কূটনৈতিক মহল।