দু’দিনের ভুটান সফরের শেষ দিনে সেখানকার ছাত্র ছাত্রীদের মধ্যে আত্মবিশ্বাস জাগিয়ে তোলার অনুপ্রেরণা দিলেন প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদী। রবিবার থিম্পুতে রয়্যাল ইউনিভার্সিটি অব ভুটানের পড়ুয়াদের সঙ্গে বেশ কিছুক্ষণ সময় কাটান তিনি। সেখানেই মোদী বলেন, ‘‘তরুণ হয়ে ওঠার জন্য এর থেকে ভাল সময় আর হতে পারে না।’’ ছাত্র ছাত্রীদের ভুটানের ‘উজ্জ্বলতম মন’ বলেও আখ্যা দিয়েছেন তিনি। ভুটানের উন্নয়নে ভারত সব সময় পাশে থাকবে বলেও বার্তা দিয়েছেন মোদী।

শনিবার শুরু হয়েছিল প্রধানমন্ত্রীর ভুটান সফর। রবিবারই শেষ। দ্বিতীয় দফায় ক্ষমতায় আসার পর এ নিয়ে দ্বিতীয় বার ভুটানে গেলেন মোদী। কম সময়ের সফর হলেও, হিমালয়ের কোলে অবস্থিত বরাবরের ওই মিত্র দেশটির পাশে থাকার বার্তাই দিয়েছেন মোদী। রবিবার, থিম্পুর রয়্যাল ইউনিভার্সিটিতে বক্তৃতা দেন প্রধানমন্ত্রী। বিশ্ববিদ্যালয়ের ছাত্রছাত্রীদের তিনি বলেন, ‘‘ঐকান্তিক প্রচেষ্টার ফলে ভুটানের যদি বিদ্যুৎ গতিতে উত্থান ঘটে তবে ১৩০ কোটি ভারতীয় বন্ধুরা কেবল মাত্র দশর্ক হিসাবে থাকবে না। তাঁরাও আপনাদের সহযোগী হবেন। তাঁরাও আপনাদের সঙ্গে অভিজ্ঞতা ভাগ করে নেবেন। তাঁরাও আপনাদের থেকে শিখবেন।’’

বিভিন্ন ক্ষেত্রে এগোচ্ছে ভুটান। তা নিয়ে এ দিন উচ্ছ্বসিত প্রশংসা করেন প্রধানমন্ত্রী। পড়ুয়াদের উদ্দেশে তিনি বলেন, ‘‘গোটা বিশ্ব  আজ আগের থেকে অনেক বেশি সুযোগ দিচ্ছে। অসাধারণ কিছু করে দেখানোর মতো সেই শক্তি ও ক্ষমতা আপনাদের রয়েছে যা আপনাদের আগামী প্রজন্মের উপরে গভীর ভাবে প্রভাব ফেলবে। নিজের মন কী চায় তা অনুসরণ করুন। নিজের প্যাশনকে স্পর্শ করতে ঝাঁপিয়ে পড়ুন।’’ মোদীর বক্তৃতা যখন চলছে তখন থিম্পুর ওই বিশ্ববিদ্যালয়ের হল ভিড়ে ঠাসা। ঐতিহ্যবাহী ভুটানি পোশাক পরে এ দিন উপস্থিত হয়েছিলেন শ্রোতারা। তাঁদের মধ্যে ছাত্র ছাত্রীরা তো বটেই, ছিলেন ভুটানের মন্ত্রী, আইনসভার সদস্য ও সরকারি কর্তারাও। এক দিকে ভুটানের পড়ুয়াদের মধ্যে স্বপ্নপূরণের মন্ত্র ছড়িয়ে দেওয়া, অন্য দিকে, দু’দেশের মধ্যে সুসম্পর্ক বজায় রাখার বার্তাও এ দিন দিয়েছেন মোদী।

আরও পড়ুন: কাশ্মীর নিয়ে টানাপড়েন বাড়ছে চিনের সঙ্গেও​

মোদীর বক্তৃতায় উঠে আসে ভারতের মহাকাশ গবেষণার কথা। স্বাভাবিক ভাবেই উঠে আসে ভারতের সাম্প্রতিক চন্দ্রযান ২ অভিযানের কথাও। মোদী বলেন, ‘‘এটা অত্যন্ত আনন্দের ব্যাপার যে তরুণ ভুটানি বিজ্ঞানীরা ভারতে আসছেন। তাঁরা ছোট কৃত্রিম উপগ্রহ তৈরি করছেন ও উৎক্ষেপণ করছেন। আমি আশা করছি, সে দিন খুব তাড়াতাড়িই আসবে যে দিন আপনাদের মধ্যেই অনেকে বিজ্ঞানী, ইঞ্জিনিয়ার বা আবিষ্কারক হবেন।’’

ছাত্র ছাত্রীদের উদ্বুব্ধ করতে, এ দিন নিজের বই ‘এক্সাম ওয়ারিয়র্স’ থেকেও উদ্ধৃতি তুলে দেন মোদী। তিনি বলেন, ‘‘এই বইতে আমি যা লিখেছি তা ভগবান বুদ্ধের শিক্ষা থেকে প্রভাবিত হয়েই। বিশেষ করে, তিনি যে ইতিবাচক দৃষ্টিভঙ্গি, ভয়কে জয় করা ও একতার সঙ্গে বাঁচার কথা বলে গিয়েছেন, তা বর্তমান সময়েই হোক বা প্রকৃতি মায়ের সঙ্গেই হোক।’’

আরও পড়ুন: ‘রাজনৈতিক আগ্রহই আমাকে অর্থনীতিতে নিয়ে এসেছিল’​

শনিবার, ভুটানের প্রধানমন্ত্রী লোটে শেরিংয়ের সঙ্গে সাক্ষাৎ হয় মোদীর। দ্বিপাক্ষিক সম্পর্ক মজবুত করতে অন্তত ১০টি চুক্তি হয়েছে দু’দেশের মধ্যে। তার মধ্যে রয়েছে মহাকাশ গবেষণা, তথ্য-প্রযুক্তি, শক্তি ও শিক্ষার মতো গুরুত্বপূর্ণ বিষয়গুলি।