সে বার তিনি কারও কথা শোনেননি। এমনকী, বিচার বিভাগেরও আপত্তি উড়িয়ে প্রকাশ করে দিয়েছিলেন মার্কিন ভোটে রুশ হস্তক্ষেপ সংক্রান্ত এফবিআই-এর এক গুচ্ছ গোপন নথি। সেটা ছিল ‘রিপাবলিকান মেমো’। এ বার বিরোধীরাও পাল্টা মেমো প্রকাশ করতে চায়। মার্কিন কংগ্রেস তাতে সম্মতি দিলেও শেষ মুহূর্তে বেঁকে বসলেন মার্কিন প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্প। যুক্তি দিলেন, ডেমোক্র্যাটদের এই নথি প্রকাশ করলে নিরাপত্তা বিঘ্নিত হবে।

কী ছিল রিপাবলিকান মেমো-য়? হোয়াইট হাউসে আসারও আগে থেকে প্রেসিডেন্টের উপর এফবিআই যে ভাবে অবৈধ নজরদারি চালিয়ে এসেছে, নথি সামনে এনে সেটাই দেখাতে চেয়েছিল ট্রাম্পের দল। পক্ষপাতের অভিযোগ উঠেছিল বিচার বিভাগের বিরুদ্ধেও। সে বার ডেমোক্র্যাটদের পাল্টা দাবি কানেই তোলেনি রিপাবলিকানরা। এ বার তাই এফবিআই তদন্ত থেকে ১০ পাতার বিশেষ মেমো সামনে আনতে চেয়েছিলেন বিরোধীরা। লক্ষ্য, রিপাবলিকানদের অভিযোগ খণ্ডন করা। আজ তা আটকে দিয়ে হোয়াইট হাউস বলেছে, ‘‘প্রেসিডেন্ট স্বচ্ছতা চান। কিন্তু অত্যন্ত স্পর্শকাতর এই খসড়া নথি বেজায় অসংলগ্ন, অনেক জায়গায় ফাঁক রয়েছে। তাই সবটা ফের খতিয়ে দেখার কথা বলা হয়েছে। প্রয়োজনে বিচার বিভাগেরও সাহায্য নিতে পারেন ডেমোক্র্যাটরা।’’ জাতীয় নিরাপত্তায় আঘাত না এলে ট্রাম্প পরে এই নথি প্রকাশের অনুমতি দিতে পারেন বলেও দাবি তাঁর ঘনিষ্ঠেদের।

নথি প্রকাশ আটকে দেওয়া নিয়ে ক্ষোভ প্রকাশ করেছেন ডেমোক্র্যাট সেনেটর চাক শ্যুমার। শুধু রিপাবলিকান মেমোর উপর ভরসা করে রুশ-তদন্ত বানচাল করে দেওয়াটাও ঠিক হবে না বলে ট্রাম্পকে লেখা চিঠিতে উদ্বেগ প্রকাশ করেছেন তিনি।