প্রিন্সেস ডায়ানাকে নিয়ে একটি তথ্যচিত্র সম্প্রচার করবে ব্রিটেনের এক টেলিভিশন চ্যানেল। সম্প্রচারিত হবে আগামী রবিবার। কিন্তু এতে ঘোর আপত্তি জানিয়েছে ডায়ানার পরিবার, বন্ধু এবং তাঁর ঘনিষ্ঠমহল।

এ মাসের শেষেই ডায়ানার মৃত্যুবার্ষিকী। তার আগেই প্রিন্সেস-এর এই তথ্যচিত্র নিয়ে শোরগোল পড়ে গিয়েছে। ওই তথ্যচিত্রে নাকি তুলে ধরা হবে ডায়ানার যৌন জীবন এবং যুবরাজ চার্লসের সঙ্গে অসুখী দাম্পত্য জীবনের কথা। এমনই দাবি করেছে চ্যানেলটি। তথ্যচিত্রটির নাম দেওয়া হয়েছে ‘ডায়ানা: ইন হার ওন ওয়ার্ডস’।

আরও পড়ুন: স্তন্যদানে ঘোরতর আপত্তি ছিল রানি ভিক্টোরিয়ার

কেন ডায়ানার ব্যক্তিগত জীবনকে প্রকাশ্যে আনা হচ্ছে এ নিয়ে ইতিমধ্যেই সমালোচনার ঝড়ও উঠেছে সে দেশে। বাকিংহাম প্যালেসের প্রাক্তন সংবাদ সচিব ডিকি আরবিটারের মতে, এ ধরনের সম্প্রচার সংশ্লিষ্ট ব্যক্তি বা পরিবারের মর্যাদা হানি করবে। দ্য ওয়াশিংটন পোস্ট-কে তিনি জানান, সব বিষয় জানার তো আমাদের প্রয়োজন নেই! গোপনটা গোপন রাখাই ভাল।

আরও পড়ুন: ডায়ানা-টেপ সম্প্রচার ঠেকাতে চান ঘনিষ্ঠরা

১৯৯২-৯৩ সালে কেনসিংটন প্যালেসে ডায়ানার কণ্ঠ প্রশিক্ষক (ভয়েস কোচ) পিটার সেটেলেনের সঙ্গে কথোপকথনের সময়ে এই তথ্য রেকর্ড হয়েছিল। ২০০৪-এ ডায়ানার উপর একটি তথ্যচিত্র তৈরি করা হয়েছিল। সেটা আমেরিকাতে সম্প্রচার হয়। কিন্তু সেখানে খণ্ড খণ্ড ভাবে বিষেয়টি দেখানো হয়েছিল। তবে ব্রিটিশ চ্যানেলটির দাবি, তাদের তৈরি যে তথ্যচিত্র সেখানে এমন কিছু ফুটেজ রয়েছে যা আগে কখনও কেউ দেখায়নি।

দ্য গার্ডিয়ানে প্রকাশিত খবর অনুযায়ী, ডায়ানার ভাই আর্ল স্পেনসার নাকি ব্রিটিশ চ্যানেলটিকে আবেদন জানিয়েছেন এই ছবি সম্প্রচার হলে ডায়ানার দুই ছেলে প্রিন্স উইলিয়াম এবং প্রিন্স হ্যারির মনে আঘাত লাগবে। ডায়ানার ঘনিষ্ঠ রোসা মন্কটন গার্ডিয়ানকে বলেন, “এটা জনসমক্ষে আনার মতো বিষয় নয়।”

আরও পড়ুন: ডায়ানাকে বিয়ের আগের রাতে কেন কেঁদেছিলেন প্রিন্স চার্লস 

এক ব্রিটিশ দৈনিক ইতিমধ্যেই ওই টেপের যে অংশবিশেষ প্রকাশ করেছে তাতে রয়েছে দেহরক্ষী ব্যারি ম্যান্নাকির সঙ্গে ডায়ানার প্রেমের সম্পর্কের কথা। ক্যামিলা পার্কার আর যুবরাজ চার্লসের প্রেম নিয়ে রাজদম্পতির মধ্যে যে কথা হয়েছিল, ডায়ানার মুখে উঠে এসেছে। ডায়ানা বলেছিলেন, ‘‘২৪-২৫ বছর বয়স তখন আমার। গভীর প্রেমে পড়েছিলাম। সব ছেড়ে চলে যাব ভেবে খুশি ছিলাম। ব্যারিও বলত, এটা দারুণ ভাবনা।’’