কর্মব্যস্ত সকাল। তার মধ্যেই ভয়ঙ্কর ভাবে কেঁপে উঠল দক্ষিণ-পশ্চিম তুরস্কের বদরাম।

মার্কিন ভূতাত্ত্বিক সর্বেক্ষণ সংস্থার তরফে জানানো হয়েছে, আজ স্থানীয় সময় সকাল আটটা ৪২ মিনিটে কেঁপে ওঠে আজিয়ান সাগর থেকে ১৫ কিলোমিটার দূরের উপকূলবর্তী বদরামের রিসর্ট। কম্পনের মাত্রা ছিল ৫.৩। ভূকম্পের কেন্দ্রস্থল ছিল ১০ কিলোমিটার গভীরে। ভূমিকম্পে এখনও পর্যন্ত হতাহতের কোনও খবর পাওয়া যায়নি।

তুরস্কের জরুরি পরিস্থিতি ও বিপর্যয় মোকাবিলা সংস্থা আবার জানিয়েছে, সকাল এগারোটার কিছু আগে কম্পন অনুভূত হয়েছে। প্রাথমিক ভাবে যা জানা গিয়েছে, তাতে কম্পনমাত্রা ছিল ৪.৯।

বদরামের এই রিসর্টটি তুরস্কের মানুষ এবং বিদেশিদের কাছে গ্রীষ্মকালীন ছুটি কাটানোর আকর্ষণীয় জায়গা। তাই এমন কম্পনে আতঙ্ক ছড়িয়েছে ওই এলাকায়। বেশির ভাগ মানুষ ভয়ে ঘর ছেড়ে বেরিয়ে এসেছিলেন। তাঁদের মতে, গত দু’সপ্তাহ ধরে মৃদু কম্পন অনুভূত হচ্ছে, তবে এটা বেশ জোরালো ছিল। এক প্রত্যক্ষদর্শী বললেন, ‘‘গত কাল রাত থেকেই অল্প অল্প কম্পন টের পাচ্ছিলাম। তবে আজ সকালে ভয়ঙ্কর ভাবে কেঁপে উঠেছিল ওই এলাকা।’’ আর এক প্রত্যক্ষদর্শীর কথায়, ‘‘পায়ে জুতো গলিয়ে অন্য ঘরে আশ্রয় নিয়েছিলাম। গোটা সময়টাই শুধু দুলেছি। অনেকটা সময় ধরেই কম্পন অনুভূত হয়েছে।’’

বদরাম থেকে ৪ কিলোমিটার দূরে তুজলা গ্রামের এক বাসিন্দা বলছেন, ‘‘কম্পন বেশ বুঝতে পেরেছি। সোফায় বসে টের পেয়েছি। সিঁড়িটাও নড়ছিল।’’ বদরামে অবশ্য এটা নতুন কিছু নয়, প্রায়শই ভূমিকম্প হচ্ছে। গত মাসে বদরাম উপকূল ও গ্রীসের কস দ্বীপে ভয়ঙ্কর কম্পন অনুভূত হয়েছিল। সুনামি সতর্কতা জারি হয়েছিল সেই সময়। তাতে আতঙ্কিত হয়ে ঘর ছেড়ে বাইরে বেরিয়ে গিয়েছিলেন পর্যটক ও এলাকার বাসিন্দারা। প্রাণ হারিয়েছিলেন দু’জন। আহত হন দু’শোরও বেশি মানুষ। জুনেও গ্রিসের লেসবস দ্বীপ ও তুরস্কের পশ্চিম উপকূলে কেঁপে উঠেছিল। সেই ভূকম্পনের মাত্রা ছিল ৬.৩। তাতে ভেঙে পড়েছিল বাড়িঘর। প্রাণ হারিয়েছিলেন এক জন।