দর্শকদের নজর টানতে পরিবেশনায় নানা কৌশল নেন কোনও কোনও সাংবাদিক। বিশেষত যখন একই খবর সবাই পরিবেশন করছেন। তফাত্ গড়ে দেয় পরিবেশনের ভঙ্গিমায়।আর তা করতে গিয়ে এক গলা জলে ডুবে রিপোর্টিং করলেন এক পাক সাংবাদিক।

পাকিস্তানের পঞ্জাব প্রদেশে সিন্ধু নদীর জলে বিরাট অংশ জলের তলায়। আর তারই রিপোর্টিং করতে গিয়ে আজাদার হুসেন নামে এক সাংবাদিকনেমে পড়লেন এক গলা জলে। সেখানে দাঁড়িয়েই হাতে বুম নিয়ে বন্যার  রিপোর্টিং করছেন।

পাকিস্তানের জি-টিভি নিউজ ভিডিয়োটি তাদের ইউটিউব চ্যানেলে আপলোড করেছে। সেখানে লেখা হয়েছে, পাকিস্তানের সংবাদিক জীবনের ঝুঁকি নিয়ে বন্যার রিপোর্টিং করছেন।

আরও পড়ুন : দাম না মিটিয়েই রেস্তরাঁ থেকে চম্পট, কী বলে গেলেন মহিলা?

আরও পড়ুন : রেলের প্লাটফর্মেই দিব্যি চলছে যাত্রী বোঝাই অটোরিক্সা

 

প্রশ্ন হচ্ছে বন্যা তো সব দেশেই হয়, সেই সব জায়গায় কি বন্যার জলে গলা পর্যন্ত ডুবে রিপোর্টিং করতে হয়। তাতেই কি একমাত্র বোঝা যায় কতটা জল জমেছে চাষের জমিতে?কেন তাঁকে এক গলা জলে নেমেই রিপোর্টিং করতে হল তা সহজেই অনুমেয়। কেউ কেউ আবার বলছেন, হয়তো সেখানে হাঁটু জল ছিল। উনি ওই জলের বসে গলা পর্যন্ত ডুবিয়ে রিপোর্টিং করছেন।

এভাবে রিপোর্টিং করার সত্যিই দরকার ছিল কিনা তা স্পষ্ট নয়। তবে এই ভিডিয়ো সলমন খান, নওয়াজউদ্দিন সিদ্দিকি অভিনীত ‘বজরঙ্গি ভাইজান’-এর সাংবাদিক চাঁদ নবাবকে মনে করিয়ে দিলেন। যেখানে চ্যানেলের কাছে গুরুত্ব পাওয়ার জন্য পাক সাংবাদিক চাঁদ নবাব যে কোনও পর্যায় যেতে রাজি ছিলেন।