Follow us on

Download the latest Anandabazar app

© 2021 ABP Pvt. Ltd.

Advertisement

২৩ জানুয়ারি ২০২২ ই-পেপার

কোহালিদের সঙ্গে বেতন বাড়তে পারে কোচেদেরও

সুমিত ঘোষ
১৪ মার্চ ২০১৭ ০৩:৪৭

ভারতীয় ক্রিকেটে নজিরবিহীন বিদ্রোহ ফুঁসে ওঠার আগেই তা থামিয়ে দেওয়া হচ্ছে। ক্রিকেটারদের ইচ্ছাকে গুরুত্ব দিয়ে তাঁদের বেতন বাড়ানোর সিদ্ধান্ত পাকা করে ফেলেছে সুপ্রিম কোর্ট-নিযুক্ত তিন সদস্যের পর্যবেক্ষক দল।

পর্যবেক্ষক দলের অন্যতম সদস্য এবং প্রাক্তন মহিলা ক্রিকেটার ডায়না এডুলজি দোলের দিন আনন্দবাজার-কে বললেন, ‘‘আমরা অনেক ব্যাপার নিয়েই আলোচনা করছি। ক্রিকেটারদের অর্থ বাড়ানোটা তার মধ্যে রয়েছে, ইয়েস।’’ দ্রুত যোগ করলেন, ‘‘ক্রিকেটারেরাই আসল। ওরাই দেশকে গর্বিত করে। ওদের জন্যই বোর্ডে টাকা আসে। তাই ওদের দিকটা সবার আগে ভাবা দরকার।’’

ভারতীয় দলের বর্তমান কোচ অনিল কুম্বলে-কে ক্রিকেটারদের চুক্তি নিয়ে বিস্তারিত রিপোর্ট জমা দেওয়ার দায়িত্ব দেওয়া হয়েছে। তিনিই সুপারিশ করবেন, ক্রিকেটারদের চুক্তির অর্থ কোন বিভাগে কত হবে। একই সঙ্গে কুম্বলের সহকারীদেরও বেতন-বৃদ্ধি কার্যত নিশ্চিত। কুম্বলের সহকারীদের মধ্যে এই মুহূর্তে বেশির ভাগই ভারতীয়। ব্যাটিং কোচ সঞ্জয় বাঙ্গার। ফিল্ডিং কোচ শ্রীধর।

Advertisement

বোর্ডের কাছে ভারতীয় কোচেরা বেশ কয়েক দিন ধরেই অনুযোগ জানিয়ে আসছেন যে, বিদেশি সহকারী কোচদের অর্ধেক টাকা দেওয়া হচ্ছে তাঁদের। নাম করে তাঁরা বলেছেন, ডানকান ফ্লেচারের বিদেশি সহকারী কোচেরা তাঁদের চেয়ে প্রায় দ্বিগুণ অর্থ পেতেন। শুরুতে দায়িত্ব নেওয়ার সময় বোর্ড থেকে বলা হয়েছিল, কয়েক দিনের মধ্যেই মাইনে বাড়িয়ে দেওয়া হবে। কিন্তু দু’বছর পেরিয়ে যাওয়ার পরেও সেই প্রতিশ্রুতি রাখা হয়নি।

অনিল কুম্বলে কোচ হয়ে আসার পরে বাধ্য হয়ে জরুরি বৈঠক করেন তখনকার বোর্ড সচিব অজয় শিরকে-র সঙ্গে। তবে সহকারীদের নিয়ে কুম্বলের সেই বৈঠক মোটেও খুব ভাল চোখে দেখেনি তখনকার প্রশাসন। সহকারী কোচদের টাকা তো বাড়েইনি, ক্রিকেটারদের চুক্তির অর্থ নিয়েও কর্তারা ভাবেননি। অথচ, গত কয়েক বছরে বোর্ডের আয় বেড়েছে লাফিয়ে লাফিয়ে। এ নিয়ে জিজ্ঞেস করলেই বোর্ড কর্তারা বলার চেষ্টা করেছেন, ‘‘চুক্তি থেকে অর্থ ছাড়াও ক্রিকেটাররা ম্যাচ ফি পায়। আইপিএল থেকেও ভাল টাকা কামাচ্ছে।’’

আরও পড়ুন: অভিনন্দনের স্রোতে কলকাতায় ফিরলেন ইন্ডিয়ান ওপেন চ্যাম্পিয়ন চৌরাসিয়া

এখন বোর্ডের প্রশাসনের ভার চলে গিয়েছে সুপ্রিম কোর্ট-নিযুক্ত পর্যবেক্ষকদের হাতে। এবং, তাঁরা গুরুত্ব সহকারে ক্রিকেটার ও কোচদের আর্থিক চুক্তি নতুন ভাবে করার কথা ভাবছেন। ডায়না আরও বলে দিচ্ছেন, ‘‘শুধু জাতীয় দল নয়, ঘরোয়া ক্রিকেটারদের ফি নিয়েও আলোচনা হচ্ছে। মহিলা ক্রিকেটারদের টাকাও বাড়ানো উচিত।’’

বোর্ডের সঙ্গে ভারতীয় ক্রিকেটারদের চুক্তিতে এখন তিনটি বিভাগ রয়েছে। কোহালি বা মহেন্দ্র সিংহ ধোনির মতো ‘এ’ গ্রেড তারকারা পান সর্বোচ্চ এক কোটি টাকা। ‘বি’ গ্রেড ক্রিকেটারেরা পান বছরে ৫০ লক্ষ। আর ‘সি’ গ্রেড-রা পান বছরে ২৫ লক্ষ। এর সঙ্গে ক্রিকেটারেরা ম্যাচ-ফি পান। ক্রিকেটারদের মধ্যে বেশ কিছু সময় ধরেই এই টাকার পরিমাণ নিয়ে অসন্তোষ রয়েছে। অন্যান্য দেশের মতো কোহালিদের প্লেয়ার্স অ্যাসোসিয়েশনও নেই যে, খেলোয়াড়দের দাবি-দাওয়া নিয়ে তারা বোর্ডের সঙ্গে লড়াই করবে।

ঘনিষ্ঠ মহলে এমনও কেউ কেউ বলেছেন যে, অস্ট্রেলীয়দের তুলনায় তাঁরা বোর্ড থেকে অনেক কম টাকা পান। ক্রিকেট বাজারে সবচেয়ে দামি হয়েও বোর্ডের চুক্তিতে তাঁরা ‘হায়েস্ট পেড ক্রিকেটার’ নন। কর্তারা এ নিয়ে চুপ থেকেছেন। পর্যবেক্ষকরা ভাবছেন এবং ক্রিকেটারদের চাপা অসন্তোষ মেটাতে চান।

আরও পড়ুন

Advertisement