মেদ ঝরানো খুব সহজ কাজ নয়। জীবনযাপনের ধরন, খাদ্যাভ্যাসের অভ্যাস এ সব কারণে যে যে অসুখ হানা দেয় তার মধ্যে মেদবৃদ্ধি যেমন আছে,  তেমনই রয়েছে ডায়াবিটিস, খারাপ কোলেস্টেরলের মাত্রা বেড়ে যাওয়া ইত্যাদি। মেদ রুখতে যথোপযুক্ত ডায়েট তো অনেকেই মানেন, তাতে ফলও রাখেন অনেকেই। কিন্তু জানেন কি, পুষ্টিবিদরা কোন কোন ফলের উপর বিশেষ গুরুত্ব আরোপ করতে বলেন?

পুষ্টিবিদ সুমেধা সিংহের মতে, ‘‘সব ফলেরই কিছু না কিছু ভাল গুণ রয়েছে। তবে মেদের বাড়াবাড়ি রুখতে গেলে এমন কিছু ফলই পাতে রাখুন, যা খেলে খারাপ কোলেস্টেরলের মাত্রা কমবে। ক্যালোরির মাত্রার কথা ভেবেও ফল বাছা উচিত।’’

জানেন কি, কী কী ফল পাতে রাখলে মেদের সঙ্গে লড়াই করা সহজ ওয়ে ওঠে?

আরও পড়ুন: চিকেন পক্সের চিন্তা? পাতে এ সব খাবার থাকলে অসুখ ঠেকানো সহজ হবে

ওজন নিয়ন্ত্রণের জন্য ভরসা রাখুন আপেলের উপর। ছবি: পিক্সঅ্যাবে।

আপেল:  লো ক্যালোরি ও উচ্চ ফাইবার-যুক্ত এই ফল ওজন কমায়। মাঝারি মাপের একটি আপেল থেকে ১১৬ ক্যালোরি মেলে ও ৪.৪ গ্রাম ফাইবার পাওয়া যায়। প্রতি দিনের ডায়েটে সাধারণত যে পরিমাণ ফাইবার প্রয়োজন হয়, তার পাঁচ ভাগের এক ভাগের জোগান দেয় এই আপেল।

স্ট্রবেরি: মাত্র ১৫০ গ্রাম স্ট্রবেরি থেকে মেলে ৫০ ক্যালোরি অথচ পেট ভরায় যথেষ্ট। সুতরাং লো ক্যালোরির এই ফল ওজন কমায়। শুধু তা-ই নয়, রক্তচাপ কমানো ও প্রদাহ রুখতেও এই ফল বেশ কার্যকর।

তরমুজ: শরীরে জলের জোগান দেওয়া এই ফলের অন্যতম কাজ। ফলে শরীরের অতিরিক্ত জল জমিয়ে রাখার প্রয়োজন পড়ে না। এতে ভিটামিন এ, বি ও সি পর্যাপ্ত পরিমাণে পাওয়া যায়। ফ্যাট কমানোর সঙ্গে লিপিড প্রোফাইলের মাত্রাও বাড়ায় এই ফল।

কিউই: পুষ্টিতে ভরপুর ও প্রচুর ভিটামিন সি-এর উপস্থিতি এই ফলের বৈশিষ্ট্য। কিউই ফলের বীজও অদ্রবীভূত ফাইবারের অন্যতম উৎস, যা হজমপ্রক্রিয়াকে সতেজ রাখে। খিদে কমাতেও সাহায্য করে এই ফল।

কমলালেবু: এর সাইট্রিক অ্যাসিড শরীরের অতিরিক্ত ফ্যাট কমিয়ে ফেলতে সাহায্য করে। একটা ছোট কমলালেবু থেকে ৪৫ ক্যালোরি মেলে। তবে ফলের রস খাওয়ার চেয়ে গোটা একটি কমলালেবু চিবিয়ে কাওয়ার চেষ্টা করুন। এতে বেশি উপকার মেলে।

আরও পড়ুন: সব ভুলে যাচ্ছেন কেন? জানতে কেন্দ্রীয় সমীক্ষা

খাওয়াদাওয়া নিয়ে এই তথ্যগুলি জানতেন?

গ্রাফিক: তিয়াসা দাস।

কলা: ডায়াবিটিসের ভয় না থাকলে কলা খেতেই পারেন। পুষ্টিগুণের জন্যই এই ফলকে রাখা উচিত ডায়েটে। একটি কলায় থাকে ১০৫ ক্যালোরি। এটি হজম প্রক্রিয়াকে ঠিক রাখে। কোষ্ঠকাঠিন্য দূর করতেও এই ফল কাজে আসে। এর ডায়াটেরি ফাইবার ওজনবৃদ্ধি কমাতে বি‌শেয সাহায্য করে।

পেয়ারা: উচ্চ ফাইবার যুক্ত এই ফল কোষ্ঠকাঠিন্য দূর করতে যেমন কাজে আসে, তেমনই এর গ্লাইসেমিক রেট নিম্ন মানের হওয়ায় ওজন কমাতে খুবই কার্যকর এই ফল। একটি মাঝারি মাপের পেয়ারায় থাকে ৩৭ ক্যালোরি। এই ফল থেকে একটুও কোলেস্টেরল পাওয়া যায় না। তাই ওজন কমাতে এই ফলের উপর আস্থা রাখেন পুষ্টিবিদরা।

পেঁপে: পেট ভরানো থেকে শুরু করে হজম প্রক্রিয়াকে বাল রেখে শরীরে ফ্যাট জমার পথে বাধা হয়ে দাঁড়ায় এই ফল। কাঁচা অবস্থায় রান্না করে খেলেও উপকার পাবেন। মাংসের স্ট্রু-তে আলুর বদলে পেঁপের ব্যবহার অনেকেই করেন। মাংসের ঝোলেও আলুর বদলে দিতেই পারেন পেঁপে।

(শুরু হয়েছে আমাদের নতুন বিভাগ 'HELLO DOCTOR'। এ বারের বিষয় ‘ব্রণর সমস্যা’। এ বিষয়ে আপনার প্রশ্ন পাঠান  query@abpdigital.in এই মেল আইডি তে। উত্তর দেবেন ত্বক বিশেষজ্ঞ সঞ্জয় ঘোষ।)