ভারতীয় বায়ুসেনার উইং কমান্ডার অভিনন্দন বর্তমান বীরচক্র পেতে চলেছেন। বালাকোট অভিযানে সাহসিকতা প্রদর্শনের জন্যে সম্মানিত করা হবে ওই অভিযানে জড়িত অন্য সৈনিকেদেরও।

সংবাদ সংস্থা সূত্রে জানানো হচ্ছে, আগামী ১৪ অগস্ট রাষ্ট্রপতি পুরস্কার প্রাপকদের চূড়ান্ত তালিকায় স্বাক্ষর করবেন। অভিনন্দন তো বটেই, পুরস্কৃত হবেন মিরাজ-২০০০ বিমান থেকে বালাকোটের জঙ্গি ঘাঁটিতে বোমাবর্ষণ করে আসা অন্য বায়ুসেনারাও।

আরও পড়ুনওয়াঘা সীমান্তে আটকে থাকার পর ভারতে ফিরল সমঝোতা এক্সপ্রেস
আরও পড়ুন৩৭০ রদই কি বিষয়? রাত ৮টায় জাতির উদ্দেশে ভাষণ প্রধানমন্ত্রীর
 

গত ২৭ ফেব্রুয়ারি ভারতে আক্রমণ করতে আসা একটি এফ ১৬ বিমানের পিছু ধাওয়া করেন অভিনন্দন বর্তমান।পাকিস্তানের ভিতরে ৭-৮ কিলোমিটার দূরত্ব অতিক্রম করে অভিনন্দনের বিমান। এর পরে আহত অবস্থায় পাক সেনার হাতে বন্দি হন তিনি। প্রায় ৬০ ঘণ্টার টানাপড়েনের পর অভিনন্দনকে মুক্তি দেয় পাকিস্তান। দেশে ফিরে বীরের মর্যাদা পান অভিনন্দন।

নিরাপত্তার কারণে এই অভিযানের পরেই শ্রীনগরে ৫১ নং স্কোয়াড্রন থেকে অন্যত্র সরানো হয় অভিনন্দন বর্তমানকে। তাঁকে কিছু প্রশাসনিক দায়িত্ব দেওয়া হয়।আগামী কয়েক মাসে ধারাবাহিক ভাবে বেঙ্গালুরুর এরোস্পেস মেডিসিন নামক সংস্থায় কিছু মেডিক্যাল টেস্ট হবে তাঁর। সব ঠিকঠাক থাকলে তার পরেই আবার আকাশে ওড়ার অনুমতি পাবেন অভিনন্দন।

কেন্দ্রীয় সরকারের তরফে অভিনন্দন-সহ ১২ জন মিরাজ-২০০০ চালককের নাম বীর চক্রের জন্যে প্রস্তাব করা হয় গত এপ্রিল মাসেই। যুদ্ধক্ষেত্রে বীরত্ব প্রদর্শনের জন্যে সেনাবাহিনীর তৃতীয় সর্বোচ্চ পুরষ্কার বীরচক্র। পরমবীর চক্র, মহাবীর চক্রের পরেই আসে এই সম্মান। অসমসাহসী বীরের হাতে পদক উঠতে আপাতত অপেক্ষা শুধু রাষ্ট্রপতির স্বাক্ষরের।