বায়ুসেনার যৌথ মহড়া ও সমন্বয় নিয়ে বৈঠক করতে সোমবার ফ্রান্সে পৌঁছলেন ভারতীয় এয়ার চিফ মার্শাল বীরেন্দ্র সিংহ ধানোয়া। আগামী চার দিন ধরে সাম্প্রতিক ভূ-রাজনৈতিক পরিস্থিতি নিয়ে দু’দেশের আলোচনার ফাঁকে ভারতের জন্য তৈরি হওয়া র‌্যাফালে যুদ্ধবিমান তৈরির কাজ পরিদর্শন করবেন বায়ুসেনা প্রধান। এক সময়ে দেশের অন্যতম সেরা যুদ্ধবিমান-পাইলট হিসেবে পরিচিত বীরেন্দ্র নিজে র‌্যাফালে বিমান চালিয়ে মহড়াও দেবেন।

প্রতিরক্ষা মন্ত্রক সূত্রের খবর, ২০১৯ সালে এই যুদ্ধবিমান হাতে পেতে পারে ভারত। প্রাথমিক ভাবে ১২৬টি র‌্যাফালে বিমান কেনার কথা থাকলেও বেশি দামের কারণে আপাতত ৩৬টি বিমান কেনার চুক্তি হয়েছে। যদিও পরবর্তী কালে এর বদলে এফ-১৬ বিমান কেনার কথাও ভাবা হচ্ছে। ফ্রান্সের সঙ্গে বৈঠকে এ নিয়ে কোনও কথা হতে পারে কি? বায়ুসেনা জানিয়েছে, এই ধরনের বিষয় এমন বৈঠকে আলোচনা হওয়ার কথা নয়। বরং যৌথ মহড়া এবং দু’দেশের বায়ুসেনার সমন্বয় বাড়ানোটাই আলোচনার মুখ্য বিষয় হবে।

সরকারি ভাবে বায়ুসেনা সমন্বয় বৈঠকের কথা জানালেও র‌্যাফালে যুদ্ধবিমান নিয়ে কিন্তু অনেকেই আগ্রহী। বায়ুসেনা সূত্রের খবর, ফরাসি এই যুদ্ধবিমান উন্নত ধরনের ক্ষেপণাস্ত্র বহনে সক্ষম। আকাশে মুখোমুখি লড়াইয়ে দাপটের পাশাপাশি এবং আকাশ থেকে মাটিতে থাকা শত্রু ঘাঁটি গুঁড়িয়ে দিতেও পারদর্শী এই বিমান। রাতে হামলা চালাতেও র‌্যাফালের জুড়ি মেলা ভার। কার্গিল যুদ্ধে রাতে বিমান হামলা চালিয়ে পাকিস্তানকে কাবু করেছিল ভারতীয় বায়ুসেনা। সেই হামলার কম্যান্ডার ছিলেন বর্তমান এয়ার চিফ মার্শাল।

নিয়ন্ত্রণরেখায় পাকিস্তানের সঙ্গে রোজই গোলাগুলির যুদ্ধ চলছে। দু’দেশের তরজায় উঠে এসেছে আকাশপথে হামলার হুমকিও। ডোকা লা-য় যুযুধান চিনা ও ভারতীয় সেনা। উত্তেজনা কমাতে বেজিংয়ে বৈঠকে যাচ্ছেন বিদেশসচিব এস
জয়শঙ্কর। এই পরিস্থিতিতে ফ্রান্সের সঙ্গে ভারতীয় বায়ুসেনা প্রধানের বৈঠককে তাৎপর্যপূর্ণ বলে মনে করছেন অনেকে।

যদিও ভারতীয় বায়ুসেনার মুখপাত্র উইং কম্যান্ডার অনুপম বন্দ্যোপাধ্যায়ের মন্তব্য,‘‘বায়ুসেনা প্রধানের এটা স্বাভাবিক বিদেশযাত্রা। সে দেশে বাহিনীর নতুন বিমান তৈরির কাজ চলছে। তাই বৈঠকের ফাঁকে সেটাও দেখে আসছেন।’’