ক্রিকেট ব্যাট দিয়ে পেটানো, মাথায় কাদাজল ঢেলে দেওয়ার ছবি ধরা পড়েছে। ফের নেতার রোষানলে সরকারি আধিকারিক। এ বার অবশ্য শারীরিক নিগ্রহ নয়, স্বাস্থ্য আধিকারিককে ধমকে ‘শিক্ষা’ দিলেন খোদ মেয়র। উত্তরপ্রদেশের বরেলীর এই ঘটনার ভিডিয়ো ছড়িয়ে পড়তেই শুরু হয়েছে শোরগোল। এফআইআর দায়ের করে ঘটনার তদন্ত শুরু করেছে পুলিশ।

সমর্থক-অনুগামীদের নিয়ে স্বাস্থ্য দফতরের ওই আধিকারিককে ধমকানোর অভিযোগ উঠেছে বরেলীর মেয়র তথা বিজেপি নেতা উমেশ গৌতমের বিরুদ্ধে। ওই অফিসার দুর্নীতিগ্রস্ত বলে অভিযোগ তুলে অফিসের মধ্যেই তাঁর উপর চোটপাট করতে শুরু করেন মেয়র। এর পরই মেয়র-সহ ৫০ জনের বিরুদ্ধে এফআইআর করে পুলিশ। যদিও অভিযুক্ত মেয়র উমেশ গৌতম এ নিয়ে এখনও কোনও মন্তব্য করেননি।

সোশ্যাল মিডিয়ায় ছড়িয়ে পড়া ওই ভিডিয়োতে দেখা যাচ্ছে, মেয়র ও তাঁর দলবল এক স্বাস্থ্য আধিকারিককে ধমকাচ্ছেন। ওই ঘরেই সামনে অন্য এক পদস্থ আধিকারিক। তাঁর সামনের জায়গায় ওই অফিসারকে কার্যত মেয়র ও তাঁর লোকজন ঘিরে রেখেছেন। তাঁকে তো বটেই, ওই পদস্থ আধিকারিকের উপরেও চেঁচাতে দেখা গিয়েছে মেয়রকে।

মেয়রকে বলতে শোনা গিয়েছে, ‘‘আপনি দুর্নীতিগ্রস্ত। কাজ করার জন্য আর কত টাকা চাই আপনার? সাধারণ মানুষের কাছে আমাদের জবাবদিহি করতে হয়।’’

আরও পড়ুন: কর্নাটক জট কাটার ইঙ্গিত, ‘আগামিকালের মধ্যেই সিদ্ধান্ত নেব’, সুপ্রিম কোর্টে বললেন স্পিকার

আরও পড়ুন: মুম্বইয়ে ভেঙে পড়ল বহুতল, মৃত ২, উদ্ধার ৫, আরও অনেকের আটকে থাকার আশঙ্কা

সপ্তাহখানেক আগেই এক ইঞ্জিনিয়ারের গায়ে কাদা জল ঢেলে দিয়েছিলেন মুম্বইয়ের কংগ্রেস বিধায়ক নীতেশ রাণে। তারও আগে গত মাসের শেষের দিকেই ইনদওরে উচ্ছেদ অভিযান ঘিরে পুর আধিকারিককে ক্রিকেট ব্যাট দিয়ে পিটিয়েছিলেন বিজেপি নেতা কৈলাস বিজয়বর্গীয়র ছেলে তথা ইনদওরের বিধায়ক আকাশ বিজয়বর্গীয়। প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদীও এই ঘটনা নিয়ে তীব্র ক্ষোভ প্রকাশ করেছিলেন। বলেছিলেন, কার ছেলে না দেখে এদের দল থেকে তাড়িয়ে দেওয়া উচিত। কিন্তু তার পরও সেই বিজেপিরই এক নেতা তথা মেয়র এ ভাবে সরকারি আধিকারিককে ধমকানোয় প্রশ্ন উঠেছে দলের অন্দরেই।