ছ’তলার ফ্ল্যাট থেকে ভেসে আসছে আর্ত চিৎকার। ভিতরে এক তরুণীর মাথায় পিস্তল ঠেকিয়ে ‘বন্দি’ করে রেখেছেন এক যুবক। তাঁর দাবি, তিনি মেয়েটিকে ভালবাসেন। বিয়েও করতে চান। মেয়েটি সেই প্রস্তাবে রাজি না হওয়া পর্যন্ত মুক্তি নেই তাঁর। খবর পেয়েই হাজির হয় পুলিশ। কিন্তু উপায় ছিল না ভিতরে ঢোকার। দরজা ভাঙলেই মেয়েটিকে খুন করে আত্মহত্যার হুমকি দিচ্ছেন যুবক।

আজ সকাল থেকে নাটকীয় এই ঘটনার সাক্ষী থাকল ভোপালের মিসরোদ এলাকা। সিনেমার কায়দায় বাড়িতে ঢুকে এক উঠতি মডেলকে দিনভর আটকে রাখলেন এক যুবক। তবে আসল চমকটা ছিল ১২ ঘণ্টার এই নাটকের একদম শেষে। তরুণ-তরুণী দু’জনেই যখন জানালেন, পরস্পরকে বিয়ে করতে চান তাঁরা।

পুলিশ জানিয়েছে, উত্তরপ্রদেশের আলিগড়ের বাসিন্দা ওই যুবকের নাম রোহিত সিংহ। মুম্বইয়ে থাকাকালীন ওই তরুণীর আলাপ হয় তাঁর। মাস কয়েক আগে মুম্বই থেকে ভোপাল চলে আসেন ওই তরুণী। রোহিতের দাবি, তাঁরা পরস্পরকে ভালবাসেন। কিন্তু তাঁদের এই সম্পর্কে সায় ছিল না পরিবারের। তাই বিয়ের প্রস্তাব নিয়েই  শুক্রবার সকালে সটান প্রেমিকার ফ্ল্যাটে চড়াও হন রোহিত।

পুলিশ জানায়, সকাল ৬টা নাগাদ তরুণীর ছ’তলার ফ্ল্যাটে ঢুকে ভিতর থেকে দরজা আটকে দেন বছর তিরিশের ওই যুবক। প্রতিবেশীদের কাছে খবর পেয়ে হাজির হয় পুলিশ। বহুতলটি চার দিক দিকে ঘিরে ফেললেও ওই যুবক গুলি চালাতে পারে, এই আশঙ্কায় ভিতরে ঢুকতে পারেনি তারা। এক পুলিশ কর্তার কথায়, ‘‘আমরা ভিতরে ঢোকার চেষ্টা করেছিলাম। কিন্তু ওই যুবক সমানে হুমকি দিচ্ছিেলন। ওঁর কাছে একটি দেশি পিস্তল ও কাঁচি ছিল। যা দিয়ে তরুণীকে আঘাত করে রক্তাক্ত করেন তিনি।’’ রোহিতের দাবি, ওই তরুণীর পরিবারের অভিযোগে অন্যায় ভাবে তাঁকে গ্রেফতার করে হেনস্থা করেছিল পুলিশ। তাই, বাধ্য হয়েই এ বার এই পন্থা নেন তিনি।

ভয় দেখিয়ে রোহিতকে বাগে আনতে না পেরে তাঁকে বুঝিয়েসুজিয়ে শান্ত করার চেষ্টা করে পুলিশ। ভিডিয়ো কলের মাধ্যমে বন্ধ দরজার ওপার থেকে কথা হয় দু’পক্ষের। দমকলের লিফ্টের সাহায্যে উঠে জানলা দিয়েও কথা বলে পুলিশ। এক সময়ে খাবার, জল, স্ট্যাম্প পেপার ও মোবাইল চার্জার চান রোহিত। পুলিশ ও মহকুমা শাসকের লাগাতার চেষ্টায় ১২ ঘণ্টা পর দরজা খুলতে রাজি হন তিনি। তাঁদের দু’জনকেই চিকিৎসার জন্য পাঠানো হয়েছে। পুলিশ জানিয়েছে, প্রেমিকা যে তাঁকে বিয়ে করতে রাজি, তা রীতিমতো স্ট্যাম্প পেপারে লিখিয়ে নিয়ে তবেই শান্ত হন রোহিত। আর তার পর জানলা দিয়ে দুই আঙুলে ‘ভি’ দেখিয়ে বোঝান, জয় হয়েছে তাঁর।