এত দিন সঙ্ঘ পরিবারের শ্রমিক সংগঠন বিএমএস-এর আপত্তিতে কিছুটা ইতস্তত করছিল নরেন্দ্র মোদী সরকার। কিন্তু এ বার আরও বেশি আসন জিতে ক্ষমতায় ফেরার পর মোদী সরকার শিল্পমহলের দাবি মেনে শ্রম আইনের ঢালাও সংস্কারের পথে হাঁটতে চাইছে। এখনকার ৪৪টি শ্রম আইনের বদলে মাত্র চারটি বিধি তৈরি হবে বলে আগেই ঠিক ছিল। এ বার দেরি না করে আসন্ন বাজেট অধিবেশনেই এই বিল আনতে চলেছে মোদী সরকার।

এত দিন শ্রম আইনের সংস্কারের জন্য আন্তঃমন্ত্রক গোষ্ঠীর নেতৃত্বে ছিলেন অরুণ জেটলি। এ বার তাঁর জায়গায় এসেছেন অমিত শাহ। আজ অমিতের নেতৃত্বে মন্ত্রিগোষ্ঠীর প্রথম দিনের বৈঠকেই সিদ্ধান্ত হয়েছে, বাজেট অধিবেশনের দ্বিতীয় সপ্তাহেই এই সংক্রান্ত বিল আনা হবে। এটিই হবে দ্বিতীয় মোদী সরকারের পেশ করা প্রথম বিল।

সরকারের পরিকল্পনা, বর্তমানে চালু ৪৪টি শ্রম আইনকে বিষয়ভিত্তিক সাজিয়ে চারটি বিধি তৈরি হবে। এই চারটি বিধি হবে—বেতন, শিল্প সম্পর্ক, শ্রমিকদের সামাজিক সুরক্ষা এবং কর্মক্ষেত্রে শ্রমিকদের নিরাপত্তা। সরকারি সূত্রের দাবি, কর্মসংস্থানের লক্ষ্যে, শিল্প মহলের সুবিধার জন্যই এই সরলীকরণ। অর্থমন্ত্রী নির্মলা সীতারামন, বাণিজ্যমন্ত্রী পীযূষ গয়াল, পেট্রোলিয়াম মন্ত্রী ধর্মেন্দ্র প্রধান, শ্রমমন্ত্রী সন্তোষ গাঙ্গোয়ার বৈঠকে হাজির ছিলেন। গাঙ্গোয়ার বলেন, ‘‘কিছু আইনে প্রয়োজন মাফিক বদল হবে। ৪৪টি আইনের মধ্যে ৭টি আইন এখন অপ্রয়োজনীয়।’’ আগামী সপ্তাহের ১৭ জুন থেকে সংসদের বাজেট অধিবেশন শুরু হচ্ছে। দ্বিতীয় সপ্তাহে এই বিল পেশ করবে সরকার।

এবার শুধু খবর পড়া নয়, খবর দেখাও। সাবস্ক্রাইব করুন আমাদের YouTube Channel - এ।