নতুন প্রতিবেশী পেলেন মুকেশ অম্বানী। রিলায়েন্স সুপ্রিমোর প্রাসাদের ঠিক উল্টো দিকে দু’টি বিলাসবহুল অ্যাপার্টমেন্ট কিনলেন মুম্বইয়ের ব্যবসায়ী দেবেন মেহতা। ১২৫ কোটি টাকা খরচ করে ওই অ্যাপার্টমেন্ট কিনেছেন মালিক স্মার্ট কার্ড আইটি সলিউশন লিমিটেডের চেয়ারম্যান ও ম্যানেজিং ডিরেক্টর দেবেন।

রিলায়েন্স সুপ্রিমো মুকেশ অম্বানীর ‘আন্টিলিয়া’ বিশ্বের সবচেয়ে দামী বাড়িগুলোর অন্যতম। প্রায় ২০০ কোটি ডলারের এই বাড়িটি ২৪ ঘণ্টা দেখা শোনা করার জন্যই প্রয়োজন হয় ৬০০ কর্মচারীর! দক্ষিণ মুম্বইয়ের এই আইকনিক নক্সার ২৭ তলা বাড়িটি চেনে না, এমন মানুষ খুঁজে পাওয়া দুষ্কর। সেই আন্টিলিয়ার পাশেই এ বার মাথা চাড়া দিয়ে উঠল ৪০ তলার আরও একটি গগনচুম্বী।

মুম্বইয়ের পদ্মাবতী প্রপার্টি রেজিস্ট্রেশন অফিস জানাচ্ছে, মুম্বইয়ের অল্টামাউন্ট রোডের ওই ৪০ তলা প্রাসাদের ৩০ এবং ৩১ তলার দু’টি অ্যাপার্টমেন্ট কিনেছেন মেহতা। লোঢা গ্রুপের তৈরি এই বাড়িটির প্রতি বর্গ ফুটের দাম প্রায় ১ লক্ষ ৪৭ হাজার টাকা।


স্মার্ট কার্ড আইটি সলিউশন লিমিটেডের চেয়ারম্যান ও ম্যানেজিং ডিরেক্টর দেবেন মেহতা।

তবে এখনও এর নির্মাণের কাজ পুরোপুরি সম্পূর্ণ হয়নি। নির্মাণ সংস্থা সূত্রে খবর, আর কয়েক মাসের মধ্যেই এই বাড়ি তৈরির সমস্ত কাজ শেষ হয়ে যাবে। সম্পূর্ণ বিল্ডিংটিই হবে ‘গ্লাস ফিনিশড’। প্রতিটি তলা প্রায় ৪,২৫০ বর্গ ফুট জায়গা নিয়ে। একেকটি তলায় রয়েছে দু’টি করে ফ্ল্যাট। রয়েছে সাত তলা পার্কিং লট। আট এবং চল্লিশ নম্বর তলায় রয়েছে সুইমিং পুল। পাশাপাশি, বাড়ির বিভিন্ন তলায় রয়েছে ওবজারভেশন ডেক, ব্যাঙ্কোয়েট হল, স্পা, হেলথ ক্লাব, লাইব্রেরিও।

শোনা যাচ্ছে, দেবেন মেহতা ছাড়া এই বাড়িতে অ্যাপার্টমেন্ট কিনবেন শ্রীকৃষ্ণ জিন্দল, অজয় জিন্দল, ভিলাসিয়া টেক্সটাইল গ্রুপের মালিক, ধ্রব অ্যাডভাইসরের সিইও দীনেশ কানাবারের মতো ব্যবসায়ীরাও।

মুম্বইয়ের এই অল্টামাইন্ট রোড বিলিয়নিওর’স রোড হিসাবেই বিখ্যাত। এই এলাকাতেই থাকেন কুমার মঙ্গলম বিড়লা, নরতম সেখসেরিয়া, ডি-মার্টের কর্ণধার রাধাকিষাণ দামানি। সম্প্রতি এখানেই বাংলো বানাচ্ছেন, ইয়েস ব্যাঙ্কের ম্যানেজিং ডিরেক্টর রানা কপূরও।