বিভিন্ন উপজাতির চাপ, প্রদেশ কংগ্রেসের গোষ্ঠীদ্বন্দ্ব সামলে নতুন সরকার তৈরির ১৬ দিনের মাথায় মন্ত্রিসভা গড়লেন অরুণাচলপ্রদেশের মু্খ্যমন্ত্রী পেমা খান্ডু। আজ রাজভবনে অরুণাচলের ভারপ্রাপ্ত রাজ্যপাল তথাগত রায় দরবার হলে ১০ জন নতুন মন্ত্রীকে শপথবাক্য পাঠ করান।

গত বছর ডিসেম্বরে প্রদেশ কংগ্রেসের অন্তর্দ্বন্দ্বের জেরে নাবাম টুকির নেতৃত্ব অস্বীকার করে কংগ্রেসের ২১ জন বিধায়ক কালিখো পুলকে নেতা নির্বাচন করেন। সাংবিধানিক সঙ্কটের জেরে সেখানে রাষ্ট্রপতি শাসন জারি হয়। ফেব্রুয়ারিতে আস্থাভোট জিতে, বিজেপির ১১ জন বিধায়কের সমর্থন নিয়ে সরকার গড়েন কালিখো পুল। বিজেপি যখন পুলকে চাপ দিয়ে অরুণাচল দখলের ছক কষছিল, তখনই গত মাসে সুপ্রিম কোর্টের রায়ে টুকি গদি ফিরে পান। কিন্তু তাঁর পক্ষে পর্যাপ্ত সমর্থন ছিল না। শেষ পর্যন্ত কংগ্রেস শীর্ষ নেতৃত্বের ‘কলকাঠি’তে পুল-শিবিরেও ভাঙন ধরে। আপোষ রফার পর ঠিক হয়, টুকি বা পুল নন, সরকার চালাবেন হবেন প্রাক্তন মুখ্যমন্ত্রী দোর্জি খান্ডুর ছেলে পেমা খান্ডু। কিন্তু কংগ্রেস ক্ষমতায় ফিরলেও বিভিন্ন গোষ্ঠীর টানাপড়েনে মন্ত্রিসভা তৈরি করতে দেরি হয় পেমার।

প্রাক্তন মুখ্যমন্ত্রী নিশি উপজাতির সদস্য নাবাম টুকি নিজে মন্ত্রী হবেন না বলে জানিয়ে দিয়েছিলেন। তাই তাঁর জায়গায় মন্ত্রিসভায় এলেন আগের স্পিকার নাবাম রিবিয়া। বাকি সদস্যরা হলেন টাঙ্গা বায়ালিং, রাজেশ তাচো, হোংচুম গানবাম, ওয়াংকি লোয়াং, কামলুং মোসাং, টাপাং টালো, কুমার ওয়াই, টাকাম পারিও ও জোমডে কেনা। শপথগ্রহণের পরই মন্ত্রিসভার বৈঠক ডাকেন পেমা। সিদ্ধান্ত হয়, মন্ত্রিসভা শিক্ষা ও স্বাস্থ্যক্ষেত্রে আপাতত সব চেয়ে বেশি জোর দেবে। জনকল্যাণে নির্দিষ্ট কয়েকটি পদক্ষেপ করা হবে।

শিক্ষা দফতরকে বিভিন্ন দুর্বলতা ও ফাঁক কাটানোর প্রস্তাব জমা দিতে বলা হয়েছে। রাজধানী ও লংডিংয়ে শিক্ষা দফতরের ডেপুটি ডিরেক্টরের দফতর তৈরি করা হবে। নবগঠিত জেলাগুলিতে জেলা শিক্ষা আধিকারিকের দফতর গড়া হবে। সিদ্ধান্ত হয়, রাজ্যে একটি মেডিক্যাল কলেজ ও হোমিওপ্যাথি কলেজ তৈরি করা হবে। বিভিন্ন দফতরে জমা থাকা গরমিল, হিসেব না মেলা, জটিলতা থাকা বকেয়া ফাইলগুলি ছাড়তে বিশেষ উদ্যোগ নেওয়া হবে। রাজ্যে সরকারি গাড়ি চালকদের মূল বেতন কাঠামো ১ হাজার ৯০০ থেকে বাড়িয়ে ২ হাজার ৪০০ টাকা করা হয়।