কেন্দ্রের পাশাপাশি নরেন্দ্র মোদী-অমিত শাহের গুজরাত সরকারের বিরুদ্ধে ৪ হাজার কোটি টাকার দুর্নীতির অভিযোগ তুলল কংগ্রেস। 

গুজরাতের সরকার চাষিদের থেকে বাদাম কিনেছে। তার পর তেলকলের মালিকদের বেচার সময় দেখা যাচ্ছে, বাদামের চেয়ে বেশি রয়েছে পাথর ও বালি। কংগ্রেসের অভিযোগ, গুজরাতে বিজেপি সরকারের নেতা-মন্ত্রীই বাদাম চুরি করে তাতে পাথর ও বালি মিশিয়ে দিয়েছেন। কংগ্রেসের পরিষদীয় দলনেতা পরেশ ধানানি ও সাংসদ রাজীব সতভের অভিযোগ, গোটা ঘটনায় অন্তত ৪ হাজার কোটি টাকার দুর্নীতি হয়েছে। বিচারবিভাগীয় তদন্তের দাবি তুলেছেন তাঁরা।

কংগ্রেসের যুক্তি, মোদী প্রধানমন্ত্রী হওয়ার পর বিজেপি সভাপতি অমিত শাহই বকলমে গুজরাত সরকার চালান। কাজেই তাঁর দিকেও অভিযোগের আঙুল তুলেছে কংগ্রেস। কংগ্রেসের দাবি, মুখ্যমন্ত্রীর দফতরও এর সঙ্গে জড়িত। দুর্নীতি চাপা দিতে এখন বাদামের গুদামে আঙুল লাগিয়ে দেওয়া হচ্ছে। সরকার নিজে তদন্তের নির্দেশ না দিলে কংগ্রেস আদালতের দ্বারস্থ হওয়ার কথা ভাববে।

রাজ্যসভায় নির্বাচনের সময় হলফনামায় তথ্য লুকোনোর অভিযোগও আজ উঠেছে অমিত শাহের বিরুদ্ধে। একটি পত্রিকার রিপোর্ট অনুযায়ী, অমিত শাহ তাঁর ছেলে জয় শাহের সংস্থাকে ঋণ জোগাড় করে দিতে তাঁর দু’টি সম্পত্তি বন্ধক রাখেন। এক বছরে জয় শাহের সংস্থার ঋণের সুযোগ ৩০০ শতাংশ বেড়ে যায়। কিন্তু নির্বাচনের হলফনামায় তাঁর এই বন্ধকের কোনও উল্লেখ করেননি অমিত। আইন অনুযায়ী, নির্বাচনের হলফনামায় সম্পত্তি ও ঋণ সংক্রান্ত দায়ের সমস্ত তথ্য জানানো বাধ্যতামূলক।