পাকিস্তানের হাঙ্গু জেলায় শিখদের জোর করে মুসলিম হতে বাধ্য করা হচ্ছে বলে যে অভিযোগ উঠেছে, তা নিয়ে গভীর উদ্বেগ প্রকাশ করেছেন ভারতের বিদেশমন্ত্রী সুষমা স্বরাজ। বিষয়টি নিয়ে তিনি অবিলম্বে পাক প্রশাসনের সর্বোচ্চ স্তরের সঙ্গে কথা বলবেন বলে মঙ্গলবার তাঁর টুইটে জানিয়েছেন সুষমা।

এ দিন তাঁর টুইটে ইসলামাবাদের ভারতীয় হাইকমিশনকে ট্যাগ করে বিদেশমন্ত্রী লিখেছেন, ‘‘বিষয়টি নিয়ে আমরা পাকিস্তান সরকারের সর্বোচ্চ স্তরের সঙ্গে কথা বলব। হাঙ্গু জেলায় বসবাসকারী শিখদের ধর্মান্তরিত হতে বাধ্য করা হচ্ছে।’’

 

গত ১৬ ডিসেম্বর পাক সংবাদপত্র ‘ট্রিবিউন’-এ ওই খবর প্রকাশিত হওয়ার পরপরই বিষয়টি বিদেশমন্ত্রীর নজরে আনার জন্য টুইট করেন পঞ্জাবের মুখ্যমন্ত্রী ক্যাপ্টেন অমরিন্দর সিংহ। সেই টুইটে তিনি বিষয়টি নিয়ে অবিলম্বে পাক সরকারের সঙ্গে কথা বলার অনুরোধ জানান বিদেশমন্ত্রীকে। তার কিছু ক্ষণের মধ্যেই আসে সুষমার ওই টুইট।

 

আরও পড়ুন- সংখ্যালঘুদের পাশেই হাসিনা,বললেন কাদের​

আরও পড়ুন- লস্করই ফের হাতিয়ার মুশারফের​

গত শনিবার পাক সংবাদপত্র ‘ট্রিবিউন’ জানায়, হাঙ্গু জেলার খাইবার-পাখতুনখোয়া প্রদেশে থাকা শিখদের সরকারি কর্তারা জোর করে মুসলিম বানাচ্ছেন। সেখানকার শিখ সম্প্রদায়ের তরফে এ ব্যাপারে একটি লিখিত অভিযোগও করা হয়েছে হাঙ্গুর ডেপুটি কমিশনারের কাছে।

তাতে বলা হয়েছে, ‘‘দোয়াবায় আমাদের (শিখ) ধর্মীয় মতাদর্শের ওপর আঘাত হানা হচ্ছে। স্থানীয় শিখদের ধর্মান্তরণে বাধ্য করছেন তহশিলের সহকারী কমিশনার তাল ইয়াকুব খান।’’

হাঙ্গুর জেলা প্রশাসন অবশ্য ওই অভিযোগ পুরোপুরি উড়িয়ে দিয়েছেন। প্রশাসনের বক্তব্য, এক জনেরও ধর্মান্তরণ হয়নি। তবে একটা অভিযোগ যখন এসেছে, তখন তা খতিয়ে দেখতে স্থানীয় শিখদের নিয়ে আলোচনায় বসার আশ্বাস দিয়েছে হাঙ্গু জেলা প্রশাসন।