• সংবাদ সংস্থা
সব খবর প্রতি সকালে আপনার ইনবক্সে

শ্রমিকদের উপর জীবাণুনাশক স্প্রে এ বার দিল্লিতে, ক্ষমা চেয়েও অদ্ভুত যুক্তি কর্তৃপক্ষের

Disinfectant
পরিযায়ী শ্রমিকদের উপর জীবাণুনাশক ছড়ানোর সেই দৃশ্য। ছবি: টুইটার

লকডাউনের প্রথম দফায় উত্তরপ্রদেশের বরেলিতে এক দল পরিযায়ী শ্রমিকের উপর জীবাণুনাশক স্প্রে করার ঘটনা ঘটেছিল। তাতে দেশ জু়ড়ে নিন্দার ঝড় ওঠে। এ বার সেই একই ছবি দেখা গেল দিল্লিতে। শুক্রবার দিল্লির লাজপত নগরে এক দল পরিযায়ী শ্রমিকের উপরে জীবাণুনাশক স্প্রে করেন সাউথ দিল্লি মিউনিসিপ্যাল কর্পোরেশন (এসডিএমসি)-এর এক দল কর্মী। সোশাল মিডিয়াতে ভাইরাল হয়ে উঠেছে ওই ঘটনার ভিডিয়ো। চাপে পড়ে অবশ্য এ নিয়ে দুঃখপ্রকাশ করেছে এসডিএমসি কর্তৃপক্ষ।

শ্রমিক স্পেশালে ওঠার আগে দিল্লির লাজপত নগরের একটি স্কুলে জড়ো হয়েছিলেন কয়েকশো পরিযায়ী শ্রমিক। সেখানে তাঁদের করোনা সংক্রান্ত পরীক্ষা হওয়ার কথা ছিল। সোশাল মিডিয়ায় যে ভিডিয়ো ছড়িয়ে পড়েছে তাতে দেখা গিয়েছে, এক জন সাফাই কর্মী ওই পরিযায়ী শ্রমিকদের উপরে জীবাণুনাশক স্প্রে করছেন। মুহূর্তেই এই ছবি সোশাল মিডিয়ায় ছড়িয়ে পড়ে। পরিযায়ী শ্রমিকদের সঙ্গে এসডিএমসি কর্মীদের ওই আচরণ নিয়ে নিন্দার ঝড় ওঠে।

বিতর্কের মুখে পড়ে শেষ পর্যন্ত বিবৃতি জারি করে এমডিএমসি। কর্তৃপক্ষের যুক্তি, “ওই এলাকার বাসিন্দারা স্কুল চত্বর ও আশপাশের রাস্তায় জীবাণুনাশক ছড়ানোর জন্য জোরালো দাবি তুলেছিলেন। কিন্তু জীবাণুনাশক ছড়ানোর যন্ত্রের চাপ নিয়ন্ত্রণ করা যায়নি। ভবিষ্যতে ওই কর্মীকে আরও সাবধানে কাজ করার নির্দেশ দেওয়া হয়েছে। ঘটনাস্থলে উপস্থিত আধিকারিকরা জন সাধারণের কাছে ক্ষমাও চেয়ে নেন।”

আরও পড়ুন: সংক্রমণে বড় লাফ, সওয়া এক লক্ষ ছাড়িয়ে গেল দেশে করোনা আক্রান্তের সংখ্যা

পরিযায়ী শ্রমিকদের উপর জীবাণুনাশক ছড়ানোর এই ঘটনা অবশ্য দেশে নতুন নয়। এর আগে উত্তরপ্রদেশের বরেলিতে এমন কাণ্ড ঘটে। লখনউয়ের চারবাগ স্টেশনের বাইরেও এক যুবকের উপর জীবাণুনাশক স্প্রে করে দেওয়ার অভিযোগ ওঠে পুরকর্মীদের বিরুদ্ধে। এই প্রসঙ্গেই কেন্দ্রীয় স্বাস্থ্যমন্ত্রক বিজ্ঞপ্তি জারি করে জানিয়ে দিয়েছিল, মানুষের শরীরে জীবাণুনাশক ছড়িয়ে করোনাভাইরাসের সংক্রমণ রোখা যাবে, এই ধারণার বৈজ্ঞানিক ভিত্তিই নেই। একইসঙ্গে বলা হয়, ওই পদ্ধতি শারীরিক এবং মানসিক ভাবেও ক্ষতিকর।

সবাই যা পড়ছেন

সব খবর প্রতি সকালে আপনার ইনবক্সে
আরও পড়ুন

সবাই যা পড়ছেন

আরও পড়ুন