গরু ও মানুষের সহাবস্থানের জন্য বিশেষ একটি হোম বানাবে দিল্লি সরকার। দক্ষিণ-পশ্চিম দিল্লিতে  একই হোমে রাখা হবে রাস্তায় ঘুরে বেড়ানো গরু আর দেখভাল করার কেউ নেই, এমন প্রবীণদের।

দিল্লির স্থানীয় উন্নয়ন মন্ত্রী গোপাল রাই এ কথা জানিয়ে বলেছেন, ‘‘ওই হোমে পরিবার পরিজনহীন বৃদ্ধ-বৃদ্ধা ও গরু, পরস্পরের দেখভাল করবেন।’’ বুধবার দিল্লিতে একটি অনুষ্ঠানে গোপাল বলেন, ‘‘দুধ দেওয়ার ক্ষমতা হারানোর পর গরুদের কথা কেউ মনে রাখে না। গোয়ালেই তাদের মরতে হয়, নিঃশব্দে। একই অবস্থা হয় মানুষেরও, প্রবীণ হয়ে পড়লে। তাঁদেরও পাঠানো হয় বৃদ্ধাশ্রমে। সেই ঘটনা ঘটে ধনী পরিবারেও।’’

তিনি জানান, দেখভালের অভাবে রাস্তার যেখানে সেখানে গরু চরতে থাকায় লোকজনের খুব অসুবিধা হয়। যানজট হয়। রাস্তঘাট নোংরা হয়। ওই বিশেষ হোমে রাস্তায় চরে বেড়ানো গরুদের রাখলে সেই সমস্যা আর থাকবে না।

আরও দেখুন- শুধু চা বিক্রি করেই ২৩টা দেশ ঘুরে ফেলেছেন এই দম্পতি!​

আরও পড়ুন- ভয় পেয়ে কুকুরকে ঢিল মারার ‘শাস্তি’, পথচারীকে গুলি করে মারল পোষ্যের মালিক!​

দিল্লির স্থানীয় উন্নয়ন মন্ত্রী এও জানিয়েছেন, শহরে বাঁদরের উৎপাত কমাতে তাদের ‘জন্ম নিয়ন্ত্রণ’-এরও কর্মসূচি রয়েছে রাজ্য সরকারের। নির্বীজকরণ করানো হবে রাস্তার কুকুরদেরও। তা ছাড়াও, রাস্তায় ঘুরে বেড়ানো গরু, ছাগল, বেড়াল, কুকুরের গতিবিধির উপর নজরদারির জন্য তাদের গলায় ঝুলিয়ে দেওয়া হবে মাইক্রোচিপ্‌স।

২০১২ সালের পশুগণনার তথ্য বলছে, সারা দেশে রাস্তায় চরে বেড়ানো গরুর সংখ্যা ৫০ লক্ষেরও বেশি। আর দিল্লিতে সেই সংখ্যাটা ১২ হাজারেরও বেশি।