• নিজস্ব সংবাদদাতা 
সব খবর প্রতি সকালে আপনার ইনবক্সে

মঞ্চ থেকে উস্কানি নয়, সতর্ক করল শাহের মন্ত্রক

Amit Shah
ছবি: পিটিআই।

উত্তর-পূর্ব দিল্লিতে যা ঘটেছে, তার জেরে সারা দেশে পরিস্থিতি ‘আরও খারাপ’ হতে পারে বলে সব রাজ্যের পুলিশ প্রধানকে সতর্ক করল কেন্দ্রীয় স্বরাষ্ট্র মন্ত্রক। বুধবার সকালে নর্থ ব্লক থেকে রাজ্যগুলিকে পাঠানো সতর্কবার্তায় বলা হয়েছে, প্রত্যেক রাজ্যের আইনশৃঙ্খলা পরিস্থিতি নিয়ে কেন্দ্রীয় সংস্থাগুলিও খোঁজখবর রাখছে। প্রয়োজন মতো রাজ্যগুলিকে সতর্ক করা হবে। তবে যে সব রাজ্যের জন্য বিশেষ সতর্কতা জারি করা হয়েছে, তার মধ্যে পশ্চিমবঙ্গ নেই। বরং এ রাজ্যে সরকার সিএএ বিরোধী আন্দোলন যে ভাবে সামলেছে, তাতে আশা প্রকাশ করেছে দিল্লি। 

সিএএ বিরোধী বা সিএএ সমর্থকদের মঞ্চ থেকে যাতে উস্কানি না দেওয়া হয়, সে ব্যাপারে উদ্যোগী হতে পুলিশকে বলেছে অমিত শাহের মন্ত্রক। রাজনৈতিক বা গোষ্ঠী নেতাদের উত্তেজক ভাষণ, সোশ্যাল মিডিয়ায় গুজব ছড়ানো সম্পর্কে সতর্ক থাকতে এবং মিশ্র এলাকাগুলিতে নজরদারি বাড়ানোর জন্য রাজ্যগুলিকে সতর্ক করা হয়েছে। নবান্নে পুলিশের এক শীর্ষ কর্তার কথায়, ‘‘স্বরাষ্ট্র মন্ত্রকের বার্তা পেয়েছি। রাজ্য ও কলকাতা পুলিশ সতর্ক রয়েছে।’’

স্বরাষ্ট্র মন্ত্রকের বার্তায় বলা হয়েছে, সিএএ-র বিরোধিতা করে দেশজুড়ে বিভিন্ন মুসলিম সংগঠন প্রতিবাদ আন্দোলন শুরু করেছিল। তবে শাহিন বাগের আদলে সারা দেশে এমন আন্দোলন মঞ্চের সংখ্যা ‘হঠাৎ’ বাড়তে থাকে। ৯ জানুয়ারি শাহিন বাগের মতো দেশে আন্দোলন মঞ্চ ছিল তিনটি। ২৪ ফেব্রুয়ারি তা বেড়ে হয়েছে ২৯০টি। বিহার, মহারাষ্ট্র, তামিলনাডু, মধ্যপ্রদেশ, রাজস্থান এবং দিল্লিতে শাহিন বাগ ধাঁচের আন্দোলন মঞ্চ তৈরি হয়েছে সবচেয়ে বেশি। রাজ্য পুলিশের প্রধানদের লেখা বার্তায় স্বরাষ্ট্র মন্ত্রক জানিয়েছে, আন্দোলন মঞ্চগুলিতে শান্তিপূর্ণ ভাবে প্রতিবাদ হলেও ২৩ ফেব্রুয়ারি থেকে তা ‘হিংস্র চেহারা’ নিতে থাকে। ২৩-২৫ ফেব্রুয়ারি উত্তরপ্রদেশের আলিগড় এবং দিল্লিতে অশান্তি শুরু হয়। বার্তায় দাবি, আলিগড়ে ৫০০ প্রতিবাদী হঠাৎই মারমুখী হয়ে উঠলে পুলিশকে বলপ্রয়োগ করতে হয়েছে। তাতে ১০ জন আহত হন, সরকারি ও বেসরকারি সম্পত্তি নষ্ট করা হয়, তিনটি পুলিশের গাড়ি জ্বালানো হয়। সে দিন আলিগড়ের বাবরি মান্ডি এলাকায় পাথর ছোড়াও হয়। ২৩ ফেব্রুয়ারি থেকে দিল্লির জাফরাবাদ, মৌজপুর, বাবরপুর মেট্রো স্টেশন এলাকায় পাথর ছোড়া ও অগ্নিসংযোগের ঘটনা ঘটে। ৩০টির বেশি গাড়ি জ্বালানো হয়েছে। ২৪ ফেব্রুয়ারি থেকে দিল্লির হিংসার ঘটনা সাম্প্রদায়িক চেহারা নেয় বলে বার্তায় জানানো হয়েছে। সেই সূত্রেই রাজ্যগুলিতে সতর্ক থাকার কথা বলেছে কেন্দ্রীয় স্বরাষ্ট্র মন্ত্রক। 

আরও পড়ুন৩ দিন ধরে সংঘর্ষের পরে অবশেষে মোদীর টুইট, প্রশ্ন ডোভালে

সবাই যা পড়ছেন

সব খবর প্রতি সকালে আপনার ইনবক্সে
আরও পড়ুন

সবাই যা পড়ছেন

আরও পড়ুন