ডিসেম্বরের শুরুতে হার্নিয়ার অপারেশন করাতে হাসপাতালে ভর্তি হয়েছিলেন ৩৩ বছরের মহাশ্বেতা চৌধুরী। অপারেশন করে বাড়ি ফেরার পর থেকেই নিয়মিত পেটের যন্ত্রণায় কষ্ট পেতেন তিনি। যন্ত্রণা সহ্য করতে না পারায় গত শুক্রবার তাঁকে ফের হাসপাতালে নিয়ে যান আত্মীয়েরা। প্রাথমিক এক্স-রে করার পর দেখা যায়,তাঁর পেটের ভিতরে আছে অপারেশনের সময় ব্যবহার করা একটি ফোরসেপ বা কাঁচি। ঘটনাটি ঘটেছে হায়দরাবাদের নিজাম ইনস্টিটিউট অব মেডিক্যাল সায়েন্সেস বা নিমস-এ।

হাসপাতালের ডিরেক্টর কে মনোহর বলেন, ‘‘আমরা এই কাঁচি অপারেশন করে বের করব। চিকিৎসকেরা ইতিমধ্যেই সেই কাজ শুরু করে দিয়েছেন।’’পাশাপাশি,পুরো বিষয়টি খতিয়ে দেখতে তিন সদস্যের একটি তদন্ত কমিটিও তৈরি করা হয়েছে বলে জানিয়েছেন তিনি।

মহাশ্বেতা চৌধুরীর আত্মীয় মহাদেব বলেন,‘‘হাসপাতালে অপারেশন করে বাড়ি ফেরার পর থেকেই নিয়মিত যন্ত্রণার কথা জানাত মহাশ্বেতা। অনেক ডাক্তার দেখিয়েও কোনও লাভ হয়নি।  এখন বুঝতে পারছি, দু’মাস আগে অপারেশনের সময়েই পেটের ভেতর কাঁচি রেখে দিয়েছিল। চিকিৎসকদের গাফিলতির জন্যই আমাদের এই বিপদের মুখে পড়তে হল।’’

আরও পড়ুন: প্রশ্নোত্তর পর্ব দ্রুত শেষ করার অনুরোধ রাজীবের, সিবিআইয়ের ইঙ্গিত অন্য

ধরা পড়ার পরও চিকিৎসকদের কোনও উদ্যোগ প্রথমে নজরে আসেনি। হাসপাতালের বাইরেই রোগীর আত্মীয়েরা বিক্ষোভ দেখাতে শুরু করলে তৎপর হন চিকিৎসকেরা। এর পরই পেটের ভেতর থেকে কাঁচি বের করার অপারেশন শুরু হয় বলে অভিযোগ জানিয়েছেন আত্মীয়েরা।

আরও পড়ুন: কোটির বেশি খরচ করে দিল্লিতে ধর্নায় বসবেন চন্দ্রবাবু! সরব বিরোধীরা

(কাশ্মীর থেকে কন্যাকুমারী, গুজরাত থেকে মণিপুর - দেশের সব রাজ্যের গুরুত্বপূর্ণ খবর জানতে আমাদের দেশ বিভাগে ক্লিক করুন।)