এলাকায় ছেলেধরা ঘুরে বেড়াচ্ছে। বেশ কয়েক দিন ধরেই হোয়াট্‌সঅ্যাপে এই বার্তাটা ঘুরছিল। এ নিয়ে একটা ভুয়ো ভিডিয়োও ছড়িয়ে পড়েছিল হায়দরাবাদের বিভিন্ন প্রান্তে। একটা আতঙ্কও তৈরি হয়েছিল জনসাধারণের মধ্যে। তারই প্রতিফলন ঘটল শনিবার।

হায়দরাবাদের চন্দ্রইয়েনগুট্টায় ছেলেধরা সন্দেহে চার রূপান্তরকামীকে ইট-পাথর দিয়ে থেঁতলে মারল প্রায় ২০০ জন উত্তেজিত জনতা। গণপ্রহারে গুরুতর জখম হন দুই রূপান্তরকামী। হাসপাতালে নিয়ে যাওয়ার পরে তাঁদের মধ্যে এক জনের মৃত্যু হয়। মৃতের নাম চন্দ্রাইয়া। তিনি মেহবুব নগর জেলার বাসিন্দা বলে জানা গিয়েছে।

পুলিশ জানিয়েছে, চার রূপান্তরকামী ট্রেন ধরে ফলকনামা স্টেশনে নামেন। সেখান থেকে তাঁরা ডিআরডিএল রোড ধরে হেঁটে যাচ্ছিলেন। সেই সময়ই প্রায় দু’শো লোক তাঁদের ঘিরে ধরে ছেলেধরা সন্দেহে। তার পরই শুরু হয় মার। পাথর, ইট দিয়ে চার জনকে বেদম মারা হয়। চার জনই আহত হন। তাঁদের মধ্যে গুরুতর আহত হন দু’জন।

আরও পড়ুন: নোটবন্দিতে লাভটা কী হল আমজনতার? এ বার প্রশ্ন নীতীশেরও

আরও পড়ুন: মাদক মেশানো জল খাইয়ে ছ’মাসের অন্তঃসত্ত্বাকে গণধর্ষণ, অভিযুক্ত অটোচালক

এই ঘটনায় এখনও পর্যন্ত ২৫ জনকে গ্রেফতার করেছে পুলিশ। বাকিদের খোঁজ চালানো হচ্ছে। ডেপুটি পুলিশ কমিশনার (দক্ষিণ) ভি সত্যনারায়ণ বলেন, “যারা এই ভুয়ো ভিডিও সোশ্যাল মিডিয়ায় ছড়িয়ে শহরে আতঙ্ক ছড়িয়েছে তাঁদের খুব শীঘ্রই গ্রেফতার করা হবে। একটি হোয়াট্‌সঅ্যাপ গ্রুপের অ্যাডমিনকে পুলিশের হেফাজতে নেওয়া হয়েছে।” পাশাপাশি তিনি আরও জানান, ভুয়ো খবর ছড়ানোর জন্য স্থানীয় চার জন সাংবাদিককে চিহ্নিত করা হয়েছে। তাঁদের বিরুদ্ধেও ব্যবস্থা নেওয়া হবে। হায়দরাবাদ পুলিশের তরফ থেকে পাল্টা প্রচার করে গুজবে কান না দেওয়ার জন্য অনুরোধ করা হচ্ছে।