সাতসকালে থানায় ঢুকে পড়ল জনা কুড়ি সশস্ত্র দুষ্কৃতী। পুলিশকর্মীরা কোনও কিছু বুঝে ওঠার আগেই এলোপাথাড়ি গুলি চালাতে শুরু করল তারা। এর পর তাঁদের সামনে দিয়েই লক-আপের ভিতর থেকে কুখ্যাত অপরাধীকে নিয়ে চম্পট দিল। কোনও সিনেমার পর্দায় নয়, শুক্রবার এমনটাই ঘটেছে রাজস্থানের অলওয়ারে। এই ঘটনায় রাজ্যের আইন-শৃঙ্খলার বেহাল দশার ছবিটা প্রকাশ্যে এসে গিয়েছে। ফলে মুখ পুড়েছে রাজস্থান পুলিশের।

রাজস্থান পুলিশের এক শীর্ষ কর্তা জানিয়েছেন, শুক্রবার সকাল পৌনে ৯টা নাগাদ বহরোড় থানায় ঢোকে দুষ্কৃতীরা। তাদের সকলের হাতে ছিল অত্যাধুনিক পিস্তল এবং একে-৪৭ রাইফেল। থানায় ঢুকেই এলোপাথাড়ি গুলি চালাতে শুরু করে। মোট ৪০ রাউন্ড গুলি চালায় তারা।

সূত্রের খবর, দুষ্কৃতীদের গুলির হাত থেকে বাঁচতে প্রাণভয়ে থানার অন্য একটি ঘরে লুকিয়ে পড়েন পুলিশকর্মীরা। এর পর লক-আপের চাবি কেড়ে নিয়ে তার ভিতর থেকে ওই কুখ্যাত অপরাধীকে নিয়ে সেখান থেকে পালিয়ে যায় তারা।

আরও পড়ুন: অসুস্থ বুদ্ধদেব ভট্টাচার্য, প্রবল শ্বাসকষ্ট নিয়ে ভর্তি আইসিসিইউ-তে

রাজস্থানের ডিজিপি ভূপেন্দ্র সিংহ জানিয়েছেন, হরিয়ানার ওই কুখ্যাত অপরাধীর নাম বিক্রম সিংহ ওরফে পাপলা গুর্জর। বৃহস্পতিবার গভীর রাতে তাকে এক ব্যাগভর্তি টাকা-সহ গ্রেফতার করা হয়। বিক্রমের বিরুদ্ধে একাধিক খুনের মামলা ঝুলছে হরিয়ানায়। দীর্ঘ দিন ধরেই তাকে খুঁজছিল পুলিশ। তার মাথার দাম রয়েছে ১ লক্ষ টাকা।

আরও পড়ুন: কিশোরী সাঁতারুর যৌন হেনস্থায় অভিযুক্ত কোচ দিল্লি থেকে গ্রেফতার

এই ঘটনার পর অভিযুক্তদের ধরতে এক শীর্ষ পর্যায়ের বৈঠকে করেন রাজ্যের ডিজিপি-সহ ডিরেক্টর (স্পেশাল অপারেশনস), রাজ্যের স্পেশাল ব্র্যাঞ্চ এবং অপরাধদমন শাখার অফিসারেরা।

পুলিশ সূত্রের খবর, বিক্রমকে ধরতে জয়পুর থেকে দিল্লির জাতীয় সড়কগুলিতে জোর তল্লাশি শুরু হচ্ছে। পাশাপাশি, রাজস্থানের অলওয়ার ও নারনৌল এলাকার রাস্তা কড়া নিরাপত্তায় মুড়ে ফেলা হয়েছে।