রাজনৈতিক অস্পৃশ্যতা ও সন্ত্রাসের শিকার ছিল বিজেপি, বারাণসীর সভায় বললেন মোদী
জনসভায় অমিত শাহ বলেন, গত পাঁচ বছরে বারাণসীর চেহারা পাল্টে দিয়েছেন মোদী। যোগী আদিত্যনাথের গলাতেও প্রায় একই সুর।
Modi Shah

কাশী বিশ্বনাথ মন্দিরে নরেন্দ্র মোদী ও অমিত শাহ। পিছনে দাঁড়িয়ে যোগী আদিত্যনাথ। ছবি: পিটিআই

ভোটে জিতে প্রথমবার নিজের কেন্দ্রে গিয়ে ভোটারদের ধন্যবাদ জানালেন নরেন্দ্র মোদীবারাণসীতে মোদী বললেন, এ বারের ভোটে ‘অঙ্ক নয়, জিতেছে রসায়ন’। একই সঙ্গে তাঁর দাবি, রাজনৈতিক অস্পৃশ্যতা এবং হিংসার শিকার ছিল বিজেপি। কিন্তু এখন সেই বিজেপিই গণতান্ত্রিক দল। সোমবার কাশী বিশ্বনাথ মন্দিরে পুজো দেন তিনি। তার পর একটি জনসভায় যোগ দেন। সঙ্গে ছিলেন বিজেপি সভাপতি অমিত শাহ এবং উত্তরপ্রদেশের মুখ্যমন্ত্রী যোগী আদিত্যনাথ। দু’জনই বারাণসীর ভোটারদের ধন্যবাদ জানান।

২০১৪ সালের চেয়েও প্রায় এক লাখ বেশি ভোটে জিতেছেন প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদী। এ বার তাঁর জয়ের ব্যবধান প্রায় ৪ লাখ ৭৯ হাজার ভোট। সেই কৃতজ্ঞতাতেই বারাণসীর ভোটারদের ধন্যবাদ জানালেন প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদী। এ দিন প্রথমে কাশী বিশ্বনাথ মন্দিরে পুজো দেন মোদী। জনসভায় অমিত শাহ বলেন, গত পাঁচ বছরে বারাণসীর চেহারা পাল্টে দিয়েছেন মোদী। যোগী আদিত্যনাথের গলাতেও প্রায় একই সুর।

বারাণসীর সভায় মোদীর অভিযোগ, বিজেপি এমন একটা দল ছিল, যারা রাজনৈতিক অস্পৃশ্যতা ও সন্ত্রাসের শিকার। সেখান থেকে এখন ‘যদি দেশে একটি মাত্র গণতান্ত্রিক দল থাকে, তাহলে সেটা বিজেপি’। তিনি বলেন, ‘‘আমরা ক্ষমতায় থাকলেও গণতন্ত্র মেনে চলি।’’

কিন্তু বাগ্মী মোদী ব্যাখ্যা করেন গোটা দেশের ভোট। তাঁর মতে এ বারের ভোটে অঙ্ক হেরে গিয়েছে। জিতে গিয়েছে রসায়ন। এই সূত্রের মাধ্যমে কী বোঝাতে চাইলেন মোদী? রাজনৈতিক পর্যবেক্ষকদের ব্যাখ্যা, এ বার লোকসভা ভোট শেষ হওয়ার আগে পর্যন্ত মোদীর জনপ্রিয়তা কমতে পারে বলেই ইঙ্গিত মিলছিল। বিজেপি তথা এনডিএ সংখ্যাগরিষ্ঠতা না পেতে পারে বলেও আশঙ্কা ছিল। এমনকি, বুথফেরত সমীক্ষাতেও কিছুটা সেই ইঙ্গিতই ছিল। এত বিপুল জনসমর্থন নিয়ে যে ফের মোদী সরকার আসতে পারে, তা অনেকেই ভবিষ্যদ্বাণী করতে পারেননি। কিন্তু ভোটের ফল কার্যত উল্টো কথা বলেছে। আগের বারের চেয়েও বেশি আসন নিয়ে বিপুল সংখ্যাগরিষ্ঠতা নিয়ে সরকার গঠন করছে বিজেপি তথা এনডিএ।

অন্য দিকে বলেছেন রসায়নের কথা। কী সেই রসায়ন? প্রথম রসায়ন, বিজেপি সভাপতি অমিত শাহ-সহ দলের কর্মীদের সম্পর্ক এবং পরিশ্রম। তাঁদের সঙ্গে শীর্ষ নেতৃত্বের সম্পর্কের রসায়ন। অন্য দিকে দেশবাসীর মনোভাবের কথাও বলতে চেয়েছেন মোদী। অর্থাৎ সারা দেশে কার্যত মোদী-বিরোধী হাওয়া থাকলেও সেই শঙ্কা উড়িয়ে ফের বিজেপিকে বিপুল জনসমর্থন দিয়েছেন দেশবাসী। জাতীয়তাবাদ আর মেরুকরণের রসায়নেই সাফল্য এসেছে— বলতে চেয়েছেন মোদী।

আরও পডু়ন: এ বারও হাজিরা দিলেন না রাজীব কুমার, যোগাযোগই করেননি সিবিআইয়ের সঙ্গে

আরও পড়ুন: নিজের রাজ্যে বক্তৃতাতেও মোদীর মুখে বাংলা, শোনালেন রিনা সাহার কথা

এর পাশাপাশি মোদী এ দিন প্রশংসায় ভরিয়ে দিয়েছেন বিজেপির কর্মী-সমর্থকদের। তাঁর মতে, এই জয় বিজেপি, এনডিএ বা মোদী-অমিত শাহের জয় নয়, এটা আসলে সারা দেশের লাখ লাখ বিজেপি কর্মীর কঠিন পরিশ্রমের জয়। তিন আরও বলেন, ‘‘দেশবাসী তথা বারাণসীর মানুষ আমাকে প্রধানমন্ত্রী  বানিয়েছেন ঠিকই, কিন্তু আমি একজন সাধারণ বিজেপি কর্মী হিসেবেই নিজেকে দেখতে চাই।’’

 

২০১৯ লোকসভা নির্বাচনের ফল

আপনার মত