• সংবাদ সংস্থা
সব খবর প্রতি সকালে আপনার ইনবক্সে

সরকার গড়তে চেয়ে গোয়ায় চাপ কংগ্রেসের

Congress

মনোহর পর্রীকরের অসুস্থতার ফলে গোয়ায় সরকার তথা দলের নেতৃত্ব নিয়ে কিছুটা অস্বস্তিতে রয়েছে বিজেপি। সেই পরিস্থিতিতে ওই রাজ্যে সরকার গঠনের দাবি জানিয়ে বিজেপি-র উপরে আরও চাপ বাড়াল কংগ্রেস।

অসুস্থ পর্রীকরকে এ দিন এইমস-এ দেখতে যান বিজেপি সভাপতি অমিত শাহ, কেন্দ্রীয় স্বাস্থ্যমন্ত্রী জে পি নড্ডা ও কেন্দ্রীয় মন্ত্রী বিজয় গয়াল। এইমস সূত্রে খবর, পর্রীকরের অবস্থা সঙ্কটজনক না হলেও তাঁকে চিকিৎসকদের নজরদারিতে রাখা হয়েছে। তার মধ্যেই আজ গোয়ায় সরকার গঠনের দাবি জানিয়েছে কংগ্রেস।

৪০ আসনের গোয়া বিধানসভায় বিজেপির হাতে রয়েছে ১৪টি আসন। মহারাষ্ট্র গোমন্তক পার্টি, গোয়া ফরওয়ার্ড পার্টি ও নির্দলদের সমর্থন নিয়ে সরকার গড়েছে তারা। কিন্তু ১৬টি আসন হাতে থাকায় একক বৃহত্তম দল কংগ্রেস। রাজনীতিকদের মতে, গোয়ায় একক বৃহত্তম দল হলেও কিছুটা ভুল চালের ফলে সে রাজ্যে সরকার গড়ার সুযোগ হারিয়েছিল কংগ্রেস। প্রায় একই ঘটনা ঘটে মণিপুরে। রাজ্যসভা ভোটে আহমেদ পটেলকে হারানোর চেষ্টা রুখে ও কর্নাটকে জেডিএসের সঙ্গে জোট করে বিজেপিকে জবাব দেয় রাহুল গাঁধীর দল। রাজনীতিকদের মতে, তার পর থেকেই আত্মবিশ্বাস বেড়েছে কংগ্রেসের। গোয়ায় সংখ্যার হিসেবে কংগ্রেসের পক্ষে ক্ষমতা দখল করা মোটেই অসম্ভব নয়। সে জন্যই কংগ্রেস ফের ক্ষমতা দখলে উদ্যোগী।

বিজেপি সূত্রের মতে, ছোট আঞ্চলিক দল ও নির্দলদের সমর্থন জোগাড়ের ক্ষেত্রে বড় ভূমিকা ছিল পর্রীকরের। এখন তাঁর অনুপস্থিতিতে পানজিম দখলের কাজ কিছুটা সহজ হবে বলেই মনে করছেন কংগ্রেস নেতারা। ইতিমধ্যেই রাজ্যপাল মৃদুলা সিন্‌হার কাছে সরকার গঠনের দাবি জানিয়েছে তারা।

কংগ্রেস পরিষদীয় দলের নেতা চন্দ্রকান্ত কেভলেকরের বক্তব্য, ‘‘একক বৃহত্তম দল হিসেবে আমাদেরই আগে সরকার গড়তে ডাকা উচিত ছিল। বর্তমান সরকার কী ভাবে চলছে তা সকলেই দেখতে পাচ্ছেন। বিশেষত গত দেড় বছরে রাজ্যের অবস্থা ক্রমশ খারাপ হয়েছে। শরিক দল, আমলাতন্ত্র-কেউই খুশি নয়। রাজ্যের মানুষের কথা আদৌ ভাবছে না বিজেপি।’’ চন্দ্রকান্তের দাবি, ‘‘বর্তমান শাসক দলগুলির ক্ষমতার লোভ এত বেশি যে মুখ্যমন্ত্রী অসুস্থ হওয়া সত্ত্বেও অন্য কোনও নেতাকে দায়িত্ব দেওয়া হয়নি।’’ তাঁর মতে, গোয়াতে পিছনের দরজা দিয়ে রাষ্ট্রপতির শাসন জারি করার চেষ্টাও হতে পারে। সে জন্যই কংগ্রেস বিকল্প সরকার গড়ার দাবি জানিয়েছে। চন্দ্রকান্তের দাবি, তাঁরা প্রয়োজনীয় সংখ্যক বিধায়কের সমর্থন পেয়ে গিয়েছেন।

সবাই যা পড়ছেন

সব খবর প্রতি সকালে আপনার ইনবক্সে
আরও পড়ুন

সবাই যা পড়ছেন

আরও পড়ুন