এমনিতে আদায়-কাঁচকলায় সম্পর্ক। কিন্তু রাজ্যের স্বার্থে আজ একযোগে কেন্দ্রীয় নীতির বিরুদ্ধে সরব হলেন ডিএমকে ও এডিএমকে সাংসদেরা। সঙ্গী হিসাবে পাশে পেলেন তৃণমূল, বিএসপি, সপা, কংগ্রেস ও বাম সাংসদদের। সম্মিলিত চাপে পড়ে তামিলনাড়ুতে শুধুমাত্র ইংরেজি ও হিন্দি ভাষায় হওয়া ডাক বিভাগের পরীক্ষা বাতিল করতে বাধ্য হল নরেন্দ্র মোদী সরকার।

গত রবিবার তামিলনাড়ুর বিভিন্ন শহরে ডাক বিভাগের চাকরিতে যোগদানের পরীক্ষা নেয় কেন্দ্র। কিন্তু উত্তর দিতে বলা হয়েছিল শুধুমাত্র ইংরেজি ও হিন্দিতে। ফলে আঞ্চলিক ভাষাকে সরকার অগ্রাহ্য করছে, এই যুক্তিতে গতকালের পরে আজও সংসদের উভয় কক্ষে প্রতিবাদ জানান বিভিন্ন দলের সাংসদেরা। আজ রাজ্যসভায় অধিবেশন শুরু হতেই বিরোধী সাংসদেরা এক যোগে বিক্ষোভ দেখাতে শুরু করেন। সরব হন ডিএমকে এবং এডিএমকে সাংসদেরা। তৃণমূল শিবিরের দাবি, মূলত তাদের উদ্যোগেই আজ এক সুরে প্রতিবাদ জানাতে এগিয়ে আসে তামিলনাড়ুর দুই প্রতিদ্বন্দ্বী দল।

বিরোধীদের অভিযোগ, নিয়ম অনুযায়ী যে রাজ্যে পরীক্ষা হচ্ছে, সে রাজ্যের সরকারি ভাষায় পরীক্ষা দেওয়ার সুযোগ থাকে সংশ্লিষ্ট রাজ্যের পরীক্ষার্থীদের। কিন্তু হিন্দিকে চাপিয়ে দেওয়ার লক্ষ্য নিয়েই ইংরেজি ও হিন্দিকে পরীক্ষার মূল ভাষা করার পরিকল্পনা নিয়েছে কেন্দ্র।

বিরোধীদের বিক্ষোভের কারণে আজ দফায় দফায় বাতিল হয়ে যায় রাজ্যসভার অধিবেশন। তৃণমূল সাংসদ মানস ভুঁইয়া বলেন, ‘‘বেলা দু’টো নাগাদ অধিবেশন শুরু হতেই কেন্দ্রীয় তথ্যপ্রযুক্তি ও যোগাযোগ মন্ত্রী রবিশঙ্কর প্রসাদ এসে প্রশ্ন সংক্রান্ত ভুল স্বীকার করেন। তিনি জানান, ওই পরীক্ষা বাতিল করা হয়েছে। ভবিষ্যতে যে কোনও কেন্দ্রীয় পরীক্ষাতেই ইংরেজি ও হিন্দির পাশাপাশি সংশ্লিষ্ট রাজ্যের মাতৃভাষায় প্রশ্ন থাকবে।’’