মেহুল চোক্সীকে প্রত্যর্পণের জন্য অ্যান্টিগার কাছে অনুরোধ জানাল ভারত। পঞ্জাব ন্যাশনাল ব্যাঙ্ক দুর্নীতি মামলায় অভিযুক্ত পলাতক চোক্সী এখন ওই ক্যারিবীয় রাষ্ট্রটির নাগরিক। সরকারি সূত্রের খবর, কয়েক দিন আগেই অ্যান্টিগায় প্রতিনিধিদল পাঠিয়েছে ভারত। শনিবার অ্যান্টিগার বিদেশ মন্ত্রকের কর্তাদের সঙ্গে দেখা করে চোক্সীকে প্রত্যর্পণের অনুরোধ জানান তার সদস্যরা। এই সংক্রান্ত নথিও তুলে দেওয়া হয়েছে অ্যান্টিগার হাতে।

পিএনবি দুর্নীতিতে আর এক অভিযুক্ত চোক্সীর ভাগ্নে নীরব মোদীও দেশ ছেড়ে পালিয়েছেন। ধোঁয়াশা রয়েছে নীরবের অবস্থান নিয়ে। কিন্তু ২০১৭ সালের মে মাসে আন্টিগায় নাগরিকত্বের আবেদন জানান চোক্সী। নাগরিকত্ব পান নভেম্বরে। চলতি বছরের ৪ জানুয়ারি ভারত ছাড়েন নীরবের মামা। অ্যান্টিগা সরকারের দাবি, চোক্সীকে ‘সন্তোষজনক’ শংসাপত্র দিয়েছিল ভারতের বিদেশ মন্ত্রক এবং মুম্বই পুলিশ। ছাড়পত্র দিয়েছিল সেবি-ও। ইন্টারপোলের তালিকাতেও ছিল না চোক্সীর নাম। এই সব খতিয়ে দেখেই মেহুলকে অ্যান্টিগার নাগরিকত্ব দেওয়া হয়েছে। অ্যান্টিগার এই দাবির পরেই নরেন্দ্র মোদী সরকারের সমালোচনায় মুখর হয় বিরোধীরা। তবে রবিবার সেবির এক কর্তা দাবি করেছেন, চোক্সীকে কোনও রকম ‘ক্লিনচিট’ দেওয়া হয়নি। নীরব এবং চোক্সীর বিরুদ্ধে তদন্তও চলছে। চোক্সীকে ‘পলাতক’ ব্যবসায়ী হিসেবে দেখিয়ে অ্যান্টিগাকে নোটিস পাঠানোর কথাও ভাবছে সেবি।

আরও পড়ুন: লন্ডনেও নরেন্দ্র মোদীর  বিরুদ্ধে সুর চড়াবেন রাহুল