পাকিস্তানের যুদ্ধবিমান এফ-১৬ ধ্বংসের পুরস্কার হিসাবে অভিনন্দন বর্তমানের নাম বীর চক্র সম্মানের জন্য সুপারিশ করল ভারতীয় বায়ুসেনা

পরমবীর চক্র এবং মহাবীর চক্রের পর যুদ্ধক্ষেত্রে সাহসিকতার জন্য সেনার তৃতীয় সর্বোচ্চ সম্মান বীর চক্র। কেন্দ্রীয় সরকারের একটি সূত্রের খবর, অভিনন্দন ছাড়া ওই সুপারিশের তালিকায় রয়েছেন বায়ুসেনার আরও ১২ জন মিরাজ ২০০০ যুদ্ধবিমানচালক। বায়ুসেনা পদকের জন্য তাঁদের নাম ভারত সরকারের কাছে সুপারিশ করা হয়েছে।

পুলওয়ামায় জঙ্গি হামলার জবাবে গত ২৬ ফেব্রুয়ারি নিয়ন্ত্রণরেখা পেরিয়ে পাকিস্তানের বালাকোটে অভিযান চালায় ভারতীয় বায়ুসেনা। পরের দিন আকাশপথে পাক যুদ্ধবিমানের সঙ্গে সংঘর্ষ শুরু হয় ভারতীয় বায়ুসেনার। উইং কমান্ডার অভিনন্দন তাঁর মিগ-২১ বাইসন যুদ্ধবিমানের সাহায্যে পাক যুদ্ধবিমান এফ-১৬ গুলি করে নামান। সেই সময় নিয়ন্ত্রণরেখা পেরিয়ে পাক অধিকৃত কাশ্মীরে ঢুকে পড়ে তাঁর বিমান। এর পর আহত অবস্থায় পাক সেনার হাতে বন্দি হন তিনি। দীর্ঘ ৬০ ঘণ্টার টানাপড়েনের পর অভিনন্দনকে মুক্তি দেয় পাক সরকার।

দিল্লি দখলের লড়াই, লোকসভা নির্বাচন ২০১৯

আরও পড়ুন: সমর্থকদের ছাপ্পা ভোট দিতে বলে বিতর্কে উত্তরপ্রদেশের এই বিজেপি নেত্রী

আরও পড়ুন: গেরুয়া সন্ত্রাস প্রশ্নে কংগ্রেসকে জবাব দিতেই প্রার্থী করা হয়েছে সাধ্বীকে: মোদী

দেশে ফেরার পর থেকেই বীরের সম্মান পাচ্ছেন অভিনন্দন। রাজস্থানের স্কুলেও তাঁর বীরগাথা পড়ানো হবে বলে ইতিমধ্যেই উদ্যোগী হয়েছে সে রাজ্যের সরকার। স্কুলের সিলেবাসে অভিনন্দনের বীরত্বের কাহিনি অন্তর্ভুক্ত করা হবে বলে জানিয়েছেন রাজস্থানের শিক্ষামন্ত্রী।

(দেশজোড়া ঘটনার বাছাই করা সেরাবাংলা খবরপেতে পড়ুন আমাদেরদেশবিভাগ।)