ডিফেন্স রিসার্চ ডেভলপমেন্ট অর্গানাইজেশন (ডিআরডিও)-র মুকুটে নয়া পালক। সম্পূর্ণ দেশীয় প্রযুক্তিতে তৈরি প্রথম এয়ার টু এয়ার মিসাইল ‘অস্ত্র’কে সুখোই যুদ্ধবিমান থেকে সফল ভাবে ছুড়ল ভারত। ওড়িশা উপকূলে এই পরীক্ষা চালিয়েছে ভারতীয় বায়ুসেনা। ‘অস্ত্র’ নির্ভুল লক্ষ্যে আঘাত হেনেছে বলে বিবৃতি জারি করে প্রতিরক্ষা মন্ত্রক।

পাল্লা ৭০ কিলোমিটার। ১৫ কেজি উচ্চ ক্ষমতা সম্পন্ন বিস্ফোরক নিয়ে ঘণ্টায় ৫ হাজার ৫৫৫ কিলোমিটার বেগে উড়ে গিয়ে নির্দিষ্ট লক্ষ্যে আঘাত করতে সক্ষম এই মিসাইল তৈরি করেছে ডিআরডিও। এই প্রথম সম্পূর্ণ দেশীয় প্রযুক্তিতে তৈরি কোনও মিসাইলের সফল পরীক্ষা করল ভারত। মঙ্গলবার পশ্চিম মেদিনীপুরের কলাইকুন্ডার বায়ুসেনা ঘাঁটি থেকে ‘অস্ত্র’ নিয়ে উড়ে যায় সুখোই-৩০। ওড়িশার উপকূল থেকেছোড়ার পর আগে থেকেই ঠিক করা লক্ষ্যবস্তুকে সফল ভাবে আঘাত করে ‘অস্ত্র’।

প্রতিরক্ষা মন্ত্রক বিবৃতি দিয়ে জানিয়েছে, ‘‘আকাশে নির্ধারিত করে দেওয়া লক্ষ্যবস্তু ধ্বংস করেছে প্রথম দেশীয় প্রযুক্তিতে তৈরি আকাশ থেকে আকাশ গোত্রের ক্ষেপণাস্ত্র ‘অস্ত্র’। বিভিন্ন রেডার, ইলেকট্রো অপটিক্যাল ট্র্যাকিং সিস্টেম, এবং সেন্সরগুলি নিখুঁত ভাবে কাজ করেছে এবং লক্ষ্যবস্তুতেও কপি-বুক মেনে আঘাত করে ধ্বংস করেছে।’’ সফল পরীক্ষার পরই ডিআরডিও-কে ধন্যবাদ জানিয়েছেন প্রতিরক্ষামন্ত্রী রাজনাথ সিংহ।

আরও পডু়ন: বারাসত আদালতেও আগাম জামিনের রক্ষাকবচ পেলেন না রাজীব কুমার

আরও পড়ুন: সৌদিতে তেল খনিতে জঙ্গি হানায় অশনিসঙ্কেত ভারতে! মন্দা ত্বরান্বিত হবে, বলছেন অর্থনীতিবিদরা

‘অস্ত্র’ তৈরিতে ডিআরডিও-র সঙ্গে বিভিন্ন স্তরে সাহায্য করেছে ৫০টি রাষ্ট্রায়ত্ত এবং বেসরকারি সংস্থা। এই ক্ষেপণাস্ত্র বহণের মতো করে বিশেষ সুখোই-৩০ যুদ্ধবিমান তৈরি করেছে রাষ্ট্রায়ত্ত সংস্থা হিন্দুস্তান অ্যারোনটিকস লিমিটেড (হ্যাল)।