যেখানে সেখানে পানের পিক, থুতু ফেলা একেবারে বন্ধ করতে এক অভিনব পন্থা নিচ্ছে মধ্যপ্রদেশের ইনদওর পুরসভা। ধরা পড়লে আর্থিক জরিমানা তো হবেই, ছবি ছাপা হবে খবরের কাগজে। এমনকী, রেডিওতেও তাঁদের নাম ঘোষণা করা হবে।

এই মুহূর্তে দেশের সবচেয়ে পরিচ্ছন্ন শহর ইনদওর। ‘স্বচ্ছ ভারত অভিযানে’র অঙ্গ হিসেবে গত কয়েক বছর ধরেই কোয়ালিটি কাউন্সিল অব ইন্ডিয়া ‘স্বচ্ছ সর্বেক্ষণ’ সমীক্ষা চালায় দেশের ৪৩৪টি শহরে। পরিচ্ছন্নতার নিরিখে শহরগুলির র‌্যাঙ্কিং প্রকাশ করা হয়। পশ্চিমবঙ্গের কোনও শহর অবশ্য এই সমীক্ষার অন্তর্গত হয়নি। চলতি বছর দেশের সবচেয়ে পরিষ্কার-পরিচ্ছন্ন শহর হিসেবে স্বীকৃতি পেয়েছে ইনদওর।

এই স্বীকৃতি ভবিষ্যতেও ধরে রাখতে চায় বিজেপি পরিচালিত ইনদওর পুরসভা। শহর পরিচ্ছন্নতায় এগিয়ে থাকলেও, একটা অংশের নাগরিকের মধ্যে অপরিচ্ছন্নতার অভ্যাস এখনও রয়ে গিয়েছে। রাস্তাঘাটে থুতু ফেলাটা এখনও একটা বড় সমস্যা। তাঁদের আটকাতেই অভিনব পন্থা ভেবেছেন শহরের মেয়র মালিনী গৌড়। প্রকাশ্যে ছবি, নাম ছাপানোর ভয়ে থুতু বা পানের পিক ফেলা কমানো যাবে বলেই মনে করেন তিনি। তাঁর কথায়, “নানা ভাবে বলেকয়েও রাস্তায় থুতু ফেলা আটকানো যাচ্ছে না। আশা করি জনসমক্ষে এ ভাবে হেয় করা হলেই এ ধরনের কাজকর্ম বন্ধ করা যাবে।”

আরও পড়ুন
বাংলায় ৩৪! শুনে হতবাক মোদীর ভক্তকুল
মিরজাফর কে কোথায়, নীরবে চলছে অঙ্ক

পুরসভা তরফে জানানো হয়েছে, আগামী ২৫ ডিসেম্বর থেকে এই অভিযান চালাবে পুরসভা। ইনদওরের গাঁধী ভবন ও রিগ্যাল স্কোয়্যারের সংযোগস্থলের ব্রিজ থেকেই শুরু হবে এই অভিযান। কিন্তু, ওই জায়গাটিকে কেন বেছে নিল পুরসভা? পুরসভার এক শীর্ষ কর্তা জানিয়েছেন, ওই ব্রিজের ডিভাইডারের গায়ে পানের পিক, থুতু ফেলাটা যেন অভ্যাসে পরিণত করেছেন শহরবাসীরা। আপাতত ঠিক হয়েছে, দোষীদের ২০০ থেকে ৫০০ টাকা পর্যন্ত জরিমানা দিতে হবে। পুরসভার কর্মী ছাড়াও এই অভিযানে স্কুলপড়ুয়াদেরও সামিল করা হবে বলে জানিয়েছেন ইনদওরের মেয়র।