ভারতীয় মহাকাশ গবেষণা সংস্থা ইসরোর যুব বিজ্ঞান কর্মশালা ও ক্যুইজ়ে প্রথম হল রামপুরহাট জিতেন্দ্রলাল বিদ্যাভবনের নবম শ্রেণির ছাত্র সোহম মণ্ডল। সোহমের বিষয় ছিল তারাদের জীবৎকাল। পরে সমগ্র কর্মশালার উপরে ক্যুইজ় হয়। সেখানেও সোহম প্রথম হয়। সোমবার স্কুল খুলতেই ছাত্রকে সংবর্ধিত করেন স্কুল কর্তৃপক্ষ।

স্কুল সূত্রের খবর, ১২ থেকে ২৬ মে শিলং এবং শ্রীহরিকোটায় এই কর্মশালা হয়। প্রতি রাজ্য থেকে তিন জন করে কিশোর বিজ্ঞানীদের নিয়ে এই কর্মশালা হয়। ১০৮ জন যোগ দেয়। সোহম ছাড়াও জেলা থেকে ছিল সিউড়ি বেণীমাধব ইনস্টিটিউশনের ছাত্র অতিন্দ্রীয় আচার্য। ভারত সরকারের বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি দফতর আয়োজিত শিশুবিজ্ঞান কংগ্রেসে প্রতিনিধিত্ব করে উৎকর্ষের বিচারে তারা ওই কর্মশালায় ডাক পেয়েছিল। ২২ মে শ্রীহরিকোঠায় উপগ্রহ উৎপেক্ষণ দেখেছে সোহম। সোহমের কথায়, ‘‘রকেট উৎপেক্ষণের বিভিন্ন শিক্ষা ও বিভিন্ন আধুনিক বিজ্ঞান শিক্ষা কর্মশালা থেকে পেয়েছি। বিজ্ঞানীদের সঙ্গে আলোচনা করতে পেরে বিজ্ঞানের প্রতি ভালবাসাও বেড়ে গিয়েছে।’’

সোহমের বাবা রামপুরহাট হাইস্কুলের শিক্ষক। সন্দীপ মণ্ডল জানালেন, ইসরোর কর্মশালায় কিশোর বিজ্ঞানীদের উদ্ভাবনী প্রোজেক্ট তৈরি, শারীরিক শিক্ষা, সাংস্কৃতিক কার্যক্রম, ল্যাবরেটরি ভিজিট, বিজ্ঞানীদের সঙ্গে আলোচনা, টেলিস্কোপে আকাশ দেখা, নতুন নতুন আবিষ্কারের সঙ্গে পরিচিত করার জন্য ইসরোকে ধন্যবাদ। এই ধরণের কর্মশালায় আগামী প্রজন্ম উৎসাহিত হবে বলেই সকলের মত। স্কুলের ছাত্রকে সংবর্ধিত করতে পেরে রামপুরহাট জিতেন্দ্রলাল বিদ্যাভবনের শিক্ষক মহল এবং পরিচালকমণ্ডলী খুশি। প্রার্থনার লাইনে স্কুলের কৃতীকে সংবর্ধনা দেওয়া হয়।