• সংবাদ সংস্থা
সব খবর প্রতি সকালে আপনার ইনবক্সে

মোদীর প্রার্থীকেই সমর্থন, ঘোষণা নীতীশের দলের

Nitish
এনডিএ-র রাষ্ট্রপতি পদপ্রার্থী রামনাথ কোবিন্দকে অভিনন্দন নীতীশ কুমারের। ছবি: পিটিআই

নরেন্দ্র মোদীর পাশেই নীতীশ কুমার।

এনডিএ-র রাষ্ট্রপতি পদপ্রার্থী রামনাথ কোবিন্দকে সমর্থনের কথা এ বার প্রকাশ্যেই জানিয়ে দিল নীতীশ কুমারের দল। বুধবার রাষ্ট্রপতি নির্বাচনে নিজেদের কৌশল ঠিক করতে কোর কমিটির বৈঠক ডাকে জেডিইউ। সেই বৈঠকে কোবিন্দকে সমর্থনের বিষয়ে সিদ্ধান্ত চূড়ান্ত নেওয়া হয়। বৈঠক শেষে জেডিইউ নেতা রত্নেশ সড়া কোবিন্দকে সমর্থনের বিষয়ে দলীয় সিদ্ধান্তের কথা জানান। সম্ভবত বুধবার সন্ধ্যাতেই আনুষ্ঠানিকভাবে সিদ্ধান্ত ঘোষণা করতে চলেছে জেডিইউ (জনতা দল ইউনাইটেড)।

বৃহস্পতিবারই বিরোধী দলগুলি রাষ্ট্রপতি নির্বাচনে নিজেদের কৌশল ঠিক করার জন্য বৈঠকে বসছে। তার আগে নীতীশের এই ঘোষণা নিঃসন্দেহে বিরোধী শিবিরে বড়সড় ধাক্কা। বিরোধীদের অস্বস্তি বাড়িয়েছে ডিএমকেও। রাষ্ট্রপতি নির্বাচনে বিরোধীদের কোনও প্রার্থী দেওয়া উচিত নয় বলে মন্তব্য করেছে ডিএমকে-এও।

কোবিন্দকে সমর্থনের বিষয়ে এনডিএ শরিকদের পাশে পাওয়ার কাজটা পুরোটাই সেরে ফেলেছেন মোদী-অমিত শাহরা। প্রথমে আপত্তি তুললেও গতকাল কোবিন্দকে সমর্থনের কথা জানিয়েছেন শিবসেনা প্রধান উদ্ধব ঠাকরে। এ বার এনডিএ জোটের বাইরে থেকে সমর্থন আসার ঢলটাও বোধহয় নেমে গেল। নীতীশ কুমারের দল এনডিএ প্রার্থীকে সমর্থনের কথা ঘোষণা করল। জেডিইউ সূত্রে খবর, বিষয়টি সনিয়া ও লালুপ্রসাদকে জানিয়েও দিয়েছেন নীতীশ।


ভাঙনের মুখে বিহারের মহাজোট?

চন্দ্রবাবু নায়ডু, কে চন্দ্রশেখর রাও, বা নবীন পট্টনায়েকরা কোবিন্দকে সমর্থনের কথা কমবেশি স্পষ্ট করে দিয়েছেন। সমর্থনের আভাস দিয়ে রেখেছে এআইএডিএমকেও। পাশাপাশি, মঙ্গলবার রাতে লখনউয়ে মোদীর সঙ্গে দেখা করেছেন সমাজবাদী পার্টির সুপ্রিমো মুলায়ম সিংহ যাদব এবং বসপা নেত্রী মায়াবাতী। তাঁরাও এনডিএ প্রার্থীকে সমর্থনের অভাস দিয়ে রেখেছেন। সব মিলিয়ে কোবিন্দের জয়ের রাস্তা মসৃণ হয়েই রয়েছে। তবে সম্ভবত এনডিএ-র বাইরের কোনও দল হিসেবে নীতীশের জেডিইউ-ই প্রথম সরকারি ভাবে কোবিন্দকে সমর্থন জানাতে চলেছে।

আরও পড়ুন: ধোঁয়াশা কাটিয়ে রামনাথের পাশে শিবসেনাও, প্রায় নিশ্চিন্ত রাইসিনা যাত্রা

সোমবার অমিত শাহ রামনাথ কোবিন্দের নাম ঘোষণার পরই তাঁকে সমর্থনের আভাস দিয়ে রেখেছিলেন বিহারের মুখ্যমন্ত্রী। কিন্তু বিহারে জেডি(ইউ), আরজেডি এবং কংগ্রেসের মহাজোটের সরকার। জোটসঙ্গী লালুপ্রসাদ যাদবের আরজেডি ইতিমধ্যেই রামনাথকে সমর্থন করা হবে না বলে জানিয়ে দিয়েছে। জোটের অন্যতম শরিক কংগ্রেসের তরফে জানানো হয়েছে, সভানেত্রী সনিয়া গাঁধীই ‘চূড়ান্ত সিদ্ধান্ত’ নেবেন। এরই মধ্যে নীতীশের দলের এই ঘোষণায় বিহারের জোট সরকারের ভবিষ্যৎ নিয়েও প্রশ্ন তুলে দিল। পাশাপাশি রাষ্ট্রপতি নির্বাচনকে ঘিরে ২০১৯ সালের লোকসভা ভোটে বিজেপি-বিরোধীদের বৃহত্তর জোটের প্রস্তুতিও চলছিল। জেডি(ইউ)-এর এ দিনের ঘোষণা সেই প্রস্তুতিতে ধাক্কা দিল কি? প্রশ্ন রাজনৈতিক মহলের।

সবাই যা পড়ছেন

সব খবর প্রতি সকালে আপনার ইনবক্সে
আরও পড়ুন

সবাই যা পড়ছেন

আরও পড়ুন