বড় ছেলে তেজপ্রতাপের বিবাহ বিচ্ছেদের খবরে মুষড়ে পড়েছেন রাষ্ট্রীয় জনতা দল সুপ্রিমো লালুপ্রসাদ যাদব। পরিস্থিতি এতটাই খারাপ যে রাঁচির হাসপাতালে ঘুমহীন রাত কাটাচ্ছেন এই প্রভাবশালী নেতা। এমনটাই জানাচ্ছেন হাসপাতালের চিকিৎসকেরা।

৯৫০ কোটি টাকার পশুখাদ্য কেলেঙ্কারির দায়ে দোষী সাব্যস্ত লালু এই মুহূর্তে কারাদণ্ড ভোগ করছেন।শারীরিক অবস্থার অবনতি হওয়ায় তাঁকে কিছু দিন আগে জেল থেকে সরিয়ে রাঁচির রাজেন্দ্র ইনস্টিটিউট মেডিক্যাল সায়েন্সেস-এ রাখা হয়েছে। তবে শারীরিক পরিস্থিতির থেকে তাঁকে বেশি ভোগাচ্ছে বড় ছেলে তেজপ্রতাপের বিবাহ বিচ্ছেদের খবর।

লালুর চিকিৎসার দায়িত্বে থাকা চিকিৎসক জানিয়েছেন, ‘‘লালুপ্রসাদের শরীরের যা অবস্থা, তাতে একদমই দুশ্চিন্তা করা ঠিক নয়। বয়েস সত্তর পেরিয়েছে। প্রতিদিন ১৪-১৫টি ওষুধ তাঁকে খাওয়ানো হচ্ছে। এই অবস্থায় ঘুম না হলে পরিস্থিতি আরও খারাপ হতে পারে। অথচ পারিবারিক সমস্যার কারণে তিনি প্রতিদিন গভীর রাত পর্যন্ত জেগে থাকছেন।’’

আরও পড়ুন: ছত্তীসগঢ়ে প্রচার: ‘শহুরে মাওবাদী’ তোপ মোদীর, নোটবন্দি-পিএনবি-তে পাল্টা রাহুলের

এক সপ্তাহ আগে বাবার সঙ্গে দেখা করে তাঁকে নিজের বিবাহ বিচ্ছেদের খবর দিয়েছিলেন তেজপ্রতাপ। পুত্রবধূ ঐশ্বর্য রাইয়ের সঙ্গে ছেলে তেজপ্রতাপের বিবাহ বিচ্ছেদের খবর মেনে নিতে পারেননি লালু। ছেলেকে অনেক বোঝানোর পরও অবশ্য এই বিচ্ছেদ এখনও পর্যন্ত আটকাতে পারেননি লালু।

আরও পড়ুন: রাজনীতি আর বুলেট, দুই লড়াই দেখার প্রতীক্ষায় সুকমা

তেজপ্রতাপের বিবাহ বিচ্ছেদের খবরে শুধু লালুপ্রসাদ নন, ভেঙে পড়েছেন মা রাবড়ি দেবীও। স্বামী কখনও জেল, কখনও হাসপাতাল, এদিকে বড় ছেলের বিবাহ বিচ্ছেদের খবর। জোড়া ধাক্কায় ভাল নেই তিনিও। এই বছর ছট পুজোয় অংশ নেবেন না বলে জানিয়ে দিয়েছেন তিনিও। অথচ প্রতি বছর তাঁর নেতৃত্বেই ধুমধাম করে ছটপুজোয় মাতে যাদব পরিবার। 

(দেশজোড়া ঘটনার বাছাই করা সেরা বাংলা খবর পেতে পড়ুন আমাদের দেশ বিভাগ।)