তৃণমূলের হয়ে প্রচার, ফেরদৌসের পরে ফেরানো হল নুরকেও
বহরমপুরে তৃণমূল কংগ্রেসের হয়ে রোড-শোয়ে অংশ নেওয়ার কারণে কালই বাংলাদেশের নামী অভিনেতা ফেরদৌসের ভিসা খারিজ করে তাঁকে দেশ ছেড়ে যাওয়ার নির্দেশ দেওয়া হয়েছিল।
Noort

গাজি আবদুন নুর

পশ্চিমবঙ্গের ভোটে তৃণমূলের হয়ে বাংলাদেশি অভিনেতার প্রচার নিয়ে ফের বিতর্ক। দমদমে তৃণমূল প্রার্থী সৌগত রায়ের প্রচার সভায় বাংলাদেশের অভিনেতা গাজি আবদুন নুর প্রচার করেছেন বলে আগেই নির্বাচন কমিশনের কাছে অভিযোগ জানিয়েছিল রাজ্য বিজেপি। স্বরাষ্ট্র মন্ত্রক সূত্রের খবর, এই অভিনেতাকে অবিলম্বে ভারত ছাড়ার নির্দেশ দেওয়া হয়েছে। মন্ত্রক সূত্রে খবর, অভিযোগ পেয়ে তাঁর ভিসার বিষয়ে খোঁজখবর করতে গিয়ে জানা যায়—বেআইনি ভাবে ভারতে রয়েছেন গাজি নুর। তাঁর ভিসার মেয়াদ আগেই শেষ হয়ে গিয়েছে। মেয়াদ ফুরিয়ে যাওয়ার পরেও ভারতে থেকে যাওয়ার জন্য উপযুক্ত ব্যবস্থা নেওয়া হবে বলেও জানিয়েছে স্বরাষ্ট্র মন্ত্রক। 

বহরমপুরে তৃণমূল কংগ্রেসের হয়ে রোড-শোয়ে অংশ নেওয়ার কারণে কালই বাংলাদেশের নামী অভিনেতা ফেরদৌসের ভিসা খারিজ করে তাঁকে দেশ ছেড়ে যাওয়ার নির্দেশ দেওয়া হয়েছিল। বিজনেস ভিসা নিয়ে ভারতে এসে রাজনৈতিক কর্মকাণ্ডে অংশ নেওয়ার কারণে তাঁকে কালো তালিকাভুক্ত করার ঘোষণাও করা হয়। কাল রাতেই ঢাকায় ফিরে যান ফেরদৌস। তবে জনপ্রিয় টিভি সিরিয়াল ‘রানি রাসমণি’-র অন্যতম প্রধান চরিত্রাভিনেতা তরুণ নুর সে ভাবে কোনও প্রচারে অংশ নেননি বলে ঘনিষ্টদের কাছে দাবি করেছেন। বর্ষবরণের একটি অনুষ্ঠানে আরও কয়েক জন অভিনেতার সঙ্গে তিনি তৃণমূল নেতা মদন মিত্রের বাড়িতে গিয়েছিলেন বলে জানিয়েছেন। সে সময়েই তাঁদের দেখতে তৃণমূল সমর্থকেরা ভিড় জমিয়েছিলেন। 

তৃণমূল নেতা তথা রাজ্যের মন্ত্রী ফিরহাদ হাকিমও এর আগে দাবি করেছিলেন, নুর দমদমে সৌগতবাবুর প্রচারে আদৌ অংশ নেননি। তবে স্বরাষ্ট্র মন্ত্রক সূত্রের বক্তব্য, ওই অভিনেতা প্রচার করুন বা না করুন, অভিযোগ জমা পড়ার পরে তাঁর ভিসার বিষয়ে খোঁজ নিতে গিয়ে আইনভঙ্গের বিষয়টি সামনে আসে। ভিসার মেয়াদ উত্তীর্ণ হয়ে যাওয়ার পর তাঁর এ দেশে থেকে যাওয়াটা শাস্তিযোগ্য অপরাধ। স্বারষ্ট্র মন্ত্রকের পক্ষ থেকে বিষয়টি বিদেশ মন্ত্রককে জানানো হয়। তৃণমূলের মুখপাত্র ডেরেক ও’ব্রায়েনের কথায়, ‘‘বিজেপির সঙ্গে এই সব বিষয় নিয়ে কথা বলাই অর্থহীন।’’ তৃণমূলের সাংসদ ও আইনজীবী কল্যাণ বন্দ্যোপাধ্যায় বলেন, ‘‘কে প্রচারে থাকবে বা কে থাকবে না, তা নিয়ে কোনও আইনই নেই।’’  

অন্য দিকে বিজেপির রাজ্যসভার সদস্য স্বপন দাশগুপ্ত বলেন, ‘‘বোঝাই যাচ্ছে গাজি নুরকে মদন মিত্র নিয়ে এসে প্রচার করিয়েছেন। তিনি কি ভেবেছিলেন, এটা কোনও পুজোর উদ্বোধন বা ক্লাবের অনুষ্ঠান! ভিসা পাওয়ার শর্ত এ ক্ষেত্রে লঙ্ঘিত হয়েছে।’’ রাত পর্যন্ত গাজি নুরের ফোন বন্ধ থাকায় তাঁর সঙ্গে যোগাযোগ করা যায়নি।

২০১৯ লোকসভা নির্বাচনের ফল

আপনার মত