শরদ পওয়ার তখন কংগ্রেসে। মহারাষ্ট্রের মুখ্যমন্ত্রী। কংগ্রেসের ঘোর শত্রু শিবসেনা। কিন্তু সে যাই হোক, খলিস্তানি জঙ্গিদের টার্গেট থেকে সেই সময় শিবসেনা প্রধান বাল ঠাকরে, তাঁর স্ত্রী, দুই পুত্র আর তাঁর পরিবারের সদস্যদের প্রাণ বাঁচিয়ে দিয়েছিলেন শরদ। বাঁচিয়ে দিয়েছিলেন বাল ঠাকরের বাসভবন ‘মাতোশ্রী’কেও।

এক সময় শিবসেনার নেতা নারায়ণ রাণে তাঁর আত্মজীবনী ‘নো হোল্ডস বারড: মাই ইয়ার্স ইন পলিটিক্স’-এ এই কথা জানিয়েছেন। লিখেছেন, ‘‘কংগ্রেসের সঙ্গে শিবসেনার সম্পর্ক যেমনই হোক, বাল ঠাকরের সঙ্গে বরাবরই ভাল যোগাযোগ ছিল শরদ পওয়ারের।’’ রাণেও এক সময় মুখ্য়মন্ত্রী ছিলেন মহারাষ্ট্রের।

রাণে জানিয়েছেন, ’৮৯ সালে খলিস্তানি জঙ্গিরা বোমা বিস্ফোরণে বাল ঠাকরের বাসভবন ‘মাতোশ্রী’ উড়িয়ে দেওয়ার ফন্দি এঁটেছিল। শরদ পওয়ার তখন মহারাষ্ট্রের মুখ্যমন্ত্রী হওয়ায় রাজ্যের স্বরাষ্ট্র দফতরের মাধ্যমে জানতে পারেন, কী ফন্দি এঁটেছে খলিস্তানি জঙ্গিরা। সেই খবর পেয়েই তিনি ফোন করেন বাল ঠাকরের ছোট ছেলে উদ্ধবকে।

শরদ বলেন, ‘‘এখনই আমার অফিসে এস। আমার সঙ্গে দেখা কর। একা আসবে কিন্তু। আর যেটা বলব, সেটা তোমার বাবা, মা, পরিবারের সদস্য ছাড়া আর কাউকে বলবে না কিন্তু।’’

আরও পড়ুন- প্রধানমন্ত্রী পদে পওয়ার চান মায়া, মমতা বা নায়ডুকে​

আরও পড়ুন- প্রধানমন্ত্রী হিসেবে মায়া, মমতা বা চন্দ্রবাবুকেই পছন্দ, রাহুলের নামই করলেন না শরদ​

রাণে জানিয়েছেন, শরদের ফোন পেয়ে সঙ্গে সঙ্গেই মুখ্যমন্ত্রীর সচিবালয়ে চলে আসেন বাল ঠাকরের ছোট ছেলে উদ্ধব। তখন সবে বিয়ে করেছে উদ্ধব। শরদ তখন উদ্ভবকে জানান, তাঁদের গোটা পরিবার আর তাঁদের বাড়ি বোমা বিস্ফোরণে উড়িয়ে দেওয়ার ফন্দি এঁটেছে খলিস্তানি জঙ্গিরা। দিনদু’য়েকের মধ্যেই সেই বিস্ফোরণ ঘটানো হবে। আর তাঁর বাড়ির পরিচারকদের মধ্যেই এমন কেউ কেউ রয়েছে, যারা ওই চক্রান্তের সঙ্গে জড়িত। ফলে, যত তাড়াতাড়ি সম্ভব বাড়ি ছেড়ে উদ্ধবদের পরিবারের সকলকে অন্যত্র নিরাপদ জায়গায় চলে যেতে বলেন।

উদ্ধব বাড়িতে এসেই সেই কথা জানান বাল ঠাকরেকে। শুনে বাড়ির সকলকে ডেকে বাল ঠাকরে তাঁদের খুব তাড়াতাড়ি সব কিছু নিয়ে অন্যত্র নিরাপদে কিছু দিনের জন্য গিয়ে থাকতে বলেন।

এক দিনের মধ্যেই স্ত্রী ও পরিবারের অন্য সদস্যদের নিয়ে মাতোশ্রী ছেড়ে অন্যত্র চলে গিয়েছিলেন ঠাকরে আর তাঁর পরিবারের সদস্যরা।

কেন হয়েছিল এমন পরিস্থিতি?

রাণে জানিয়েছেন, তার আগের বছরেই ঠাকরে মুম্বইয়ের শিখ সম্প্রদায়কে সতর্ক করে দিয়েছিলেন, কেউ যেন খলিস্তানপন্থীদের মদত না দেয়। দিলে কড়া ব্যবস্থা নেবেন তিনি।