গরু চুরি নিয়ে বিবাদে তরোয়াল দিয়ে এক ব্যক্তির দু’হাত কেটে নেওয়ার অভিযোগ উঠল মধ্যপ্রদেশের রায়সেন জেলায়।

পুলিশ জানিয়েছে, শুক্রবার থেকে গরুর খোঁজ পাচ্ছিলেন না প্রেম নারায়ণ সাহু। গরু খুঁজতে সাত্তু যাদব নামে অন্য এক গ্রামবাসীর বাড়ি যান তিনি। অচিরেই ঝগড়া বেধে যায় দু’পক্ষের মধ্যে। অভিযোগ, সেই সময়ে যাদব পরিবারের কয়েক জন সাহুকে চেপে ধরে গাছের সঙ্গে বেঁধে ফেলেন। এর পর তরোয়াল কেড়ে নিয়ে তাঁর ডান হাতটি কেটে দেন। সাহুর বাঁ হাতেও গুরুতর চোট লাগে। পরে প্রতিবেশীরাই পুলিশ ডেকে আহতকে হাসপাতালে পাঠান। যাদব পরিবারের দু’জনকে গ্রেফতার করেছে পুলিশ। তিন জন পলাতক।

এ দিকে, স্বঘোষিত গোরক্ষকদের অত্যাচারও অব্যাহত। উত্তরপ্রদেশে এক গ্রামে দিন তিনেক আগে এক বৃদ্ধকে পিটিয়ে নালায় ফেলে দিয়েছিল তারা। পুলিশ সূত্রের খবর, বলরামপুর জেলার লক্ষ্মণপুর গ্রামের বাসিন্দা ৭০ বছর বয়সি কৈলাস নাথ শুক্লের পোষ্য গরুটি অসুস্থ ছিল। বৃদ্ধ তাকে নিয়ে পশুচিকিৎসকের কাছে যাচ্ছিলেন। নন্দপুর গ্রামের ভিতর দিয়ে যাওয়ার সময় কয়েকজন বাসিন্দা তাঁকে লাঠি নিয়ে আক্রমণ করে এবং গরুটি কেড়ে নেয়। বৃদ্ধের কথায় বিশ্বাস করেননি কেউ। বরং গুজব ছড়ায়, তিনি এক জন মুসলিমের কাছে গরুটি বিক্রি করতে যাচ্ছেন। তাঁকে পিটিয়ে নালায় ফেলে দেওয়া হয়। তারপর নালা থেকে তুলে গ্রামবাসীরা বৃদ্ধের মাথা কামিয়ে, চুনকালি মাখিয়ে হাঁটায়। কৈলাস কোনওক্রমে থানায় গেলেও পুলিশ এফআইআর নিতে চায়নি।

পরে বলরামপুরের এসপি রাজেশকুমারের হস্তক্ষেপে চার জনকে গ্রেফতার করা হয়।