• সংবাদ সংস্থা
সব খবর প্রতি সকালে আপনার ইনবক্সে

ছত্তীসগঢ়ে সশস্ত্র বাহিনীর শিবিরে মাওবাদীদের হামলা, মৃত্যু এক কনস্টেবলের

Combing Operation
—ফাইল চিত্র।

ছত্তীসগঢ়ে রাজ্য সশস্ত্রবাহিনীর (সিএএফ) শিবিরে হামলা চালাল মাওবাদীরা। তাতে এক কনস্টেবলের মৃত্যু হয়েছে। হামলা চালিয়ে পার্শ্ববর্তী জঙ্গলে মাওবাদীরা গা ঢাকা দেয় বলে জানা গিয়েছে। তাদের খোঁজে ওই জঙ্গলে তল্লাশি শুরু করেছে নিরাপত্তাবাহিনী।

সোমবার সকালে নারায়ণপুর জেলায় এই ঘটনা ঘটে। পুলিশসূত্রে জানা গিয়েছে, ছোটে ডোঙ্গর থানা এলাকায় সিএএফ-এর ওই শিবিরটি রয়েছে। এ দিন সকালে অস্ত্রশস্ত্র নিয়ে সেখানে ঢুকে পড়ে দুই মাওবাদী। দু’রাউন্ড গুলি চালায় তারা। তাতেই সিএএফ-এর ২২ নম্বর ব্যাটালিয়নের কনস্টেবল জিতেন্দ্র বাকড়ের মৃত্যু হয়।

হামলা চালানোর পর নিরাপত্তাবাহিনীর শিবির সংলগ্ন জঙ্গলে ওই দুই মাওবাদী মিলিয়ে যায় বলে জানা গিয়েছে। বস্তারের আইজি সুন্দরাজ পি বলেন, ‘‘প্রাথমিক ভাবে জানা গিয়েছে, দুই মাওবাদী মিলে হামলা চালায়। তার পর তারা জঙ্গলের মধ্যে ঢুকে পড়ে।’’ তাদের খোঁজে ছত্তীসগঢ় পুলিশ ও সশস্ত্রবাহিনী যৌথ ভাবে ওই জঙ্গলে চিরুণি তল্লাশি চালাচ্ছে বলে জানা গিয়েছে।

আরও পড়ুন: রামমন্দিরের ২ হাজার ফুট নীচে রাখা হবে টাইম ক্যাপসুল, জানালেন মন্দির কর্তৃপক্ষ​

ছত্তীসগঢ় পুলিশের দেওয়া তথ্য অনুযায়ী, এ বছর জানুয়ারি থেকে ৩০ জুন পর্যন্ত বস্তার ও সদ্য গঠিত মহারাষ্ট্র-মধ্যপ্রদেশ-ছত্তীসগঢ় (এমএমসি) ডিভিশন মিলিয়ে মাওবাদীদের হামলায় ২৬ জন নিরাপত্তকর্মীর মৃত্যু হয়েছে। পুলিশ ও সেনাবাহিনীর পাল্টা জবাবে মৃত্যু হয়েছে ২০ জন মাওবাদীর। ২০১৮ ও ’১৯ সালে সেখানে মাওবাদীদের হামলায় যথাক্রমে ৩৫ ও ১২ জন নিরাপত্তাকর্মী প্রাণ হারান।

আরও পড়ুন: ফ্রান্স থেকে উড়ল প্রথম দফার ৫টি রাফাল, ভারতে পৌঁছবে বুধবার​

নিহত সঙ্গীদের স্মরণে গত ২৮ জুলাই থেকে ৪ অগস্ট ‘শহিদ সপ্তাহ’ পালনের সিদ্ধান্ত নিয়েছে ছত্তীসগঢ়ের মাওবাদীরা। তার জন্য বস্তার ডিভিশনের দান্তেওয়াড়া, বিজাপুর, বস্তার, নারায়ণপুর, কোন্ডাগাঁও, সুকমা এবং কাঙ্কের, এই সাতটি জেলা-সহ অন্যান্য মাওবাদী অধ্যুষিত এলাকাগুলিতে নিরাপত্তা বাড়ানোর সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়। তা সত্ত্বেও এ দিন এই হামলা ঘটে গেল।

সবাই যা পড়ছেন

সব খবর প্রতি সকালে আপনার ইনবক্সে
আরও পড়ুন

সবাই যা পড়ছেন

আরও পড়ুন