সাদা শাড়ি। চওড়া বেগুনি পাড়। লাল টিপ। হাতে চূড়া। সিঁথিতে চওড়া সিঁদুর। সংসদের অন্দরে মঙ্গলবার সকালে শপথ নিলেন যে নুসরত জাহান তাঁর চেহারায় এখনও নতুন বিয়ের গন্ধ।

সদ্য তুরস্কের বোদরুমে পেশায় ব্যবসায়ী নিখিল জৈনকে বিয়ে করেছেন নুসরত। সে কারণেই সংসদের প্রথম দিনে শপথ নিতে পারেননি বসিরহাটের এই তৃণমূল সাংসদ। গত শনিবার রাতে কলকাতায় ফিরেছেন নুসরত। ‘‘বিয়ের ডেট আগে থেকেই ঠিক ছিল। পার্লামেন্টের অনুমতি নিয়ে গিয়েছিলাম’’, বলেন নুসরত। 

মঙ্গলবার সংসদে বাংলায় শপথ নেন নুসরত। শুরুতে ‘সালাম ওয়ালেকুম’ এবং শপথ শেষে ‘জয় বাংলা’ স্লোগান শোনা যায় সদ্য নির্বাচিত সাংসদের গলায়। এ প্রসঙ্গে নুসরত বলেন, ‘‘কোনও রাজনৈতিক দৃষ্টিভঙ্গি থেকে নয়, বাংলা থেকে এসেছি। সে কারণেই জয় বাংলা বলে শেষ করলাম।’’ পরে স্পিকারের পায়ে হাত দিয়েও প্রণাম করতে দেখা যায় তাঁকে।

আরও পড়ুন, গত পাঁচ বছর ধরে দেশে সুপার ইমার্জেন্সি চলছে, মোদীকে ফের আক্রমণ মমতার

নুসরতের সঙ্গেই এ দিন শপথ নেন যাদবপুরের তৃণমূল সাংসদ মিমি চক্রবর্তীও। নুসরতের বিয়েতে যোগ দিতে বোদরুমে যাওয়ায় তিনিও প্রথম দিন শপথ নিতে পারেননি। সাদা সালোয়ার কামিজে সেজে বাংলায় শপথ নেন মিমিও। তাঁর কথায়, ‘‘আজ সংসদে প্রথম দিন। নতুন একটা জার্নি শুরু করলাম। তাই সংসদকে প্রণাম করে ঢুকেছি। আমার খুব ভাল লাগছে নুসরতের সঙ্গে একই দিনে আমার রাজনৈতিক কেরিয়ার শুরু হল। আমাদের বন্ধুত্ব ছিল, আছে, থাকবে।’’

আরও পড়ুন: নুসরত সম্পর্কে এই তথ্যগুলো জানেন? 

আরও পড়ুন, পারলে গাঁধীদের জেলে পাঠান, চ্যালেঞ্জ অধীরের

আক্ষরিক অর্থেই মিমি-নুসরতের জীবনে এ এক নতুন ইনিংস। অনেকটা পথ পেরিয়ে লড়াইয়ের পর তাঁরা রাজনীতির ময়দানে। সেই উচ্ছ্বাস ধরা পড়ে তাঁদের চেহারায়। একে অপরকে আলিঙ্গন করেন দুই বন্ধু।

শপথ গ্রহণের পর নিখিল ও তাঁর পরিবারের সদস্যদের সঙ্গে সংসদ চত্বর ছেড়ে গাড়িয়ে বেরিয়ে যান নুসরত। এ দিন বিকেলে ফের তিনি সংসদে আসতে পারেন বলে খবর।

(ভারতের রাজনীতি, ভারতের অর্থনীতি- সব গুরুত্বপূর্ণ খবর জানতে আমাদের দেশ বিভাগে ক্লিক করুন।) 

এবার শুধু খবর পড়া নয়, খবর দেখাও। সাবস্ক্রাইব করুন আমাদের YouTube Channel - এ।